আইএপিপি এর কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের জাতীয় বেতনস্কেল বাস্তবায়নের দাবীতে মানববন্ধন ও কর্মবিরতি

2

 

বিশেষ প্রতিনিধিঃ বিশ^ব্যাংকের অর্থায়নে কৃষি মন্ত্রনালয় এবং মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রনালয় কর্তৃক বাস্তবায়িত ইন্টিগ্রেটেড এগ্রিকালচারাল প্রডাক্টিভিটি প্রজেক্ট (আইএপিপি) প্রকল্প বাংলাদেশের দক্ষিনাঞ্চলের ৪ জেলা ও উত্তারাঞ্চলের ৪ জেলার ৫৬ টি উপজেলায় কৃষি, মৎস্য, প্রাণিসম্পদ, বিএডিসি, বিআরআরআই, বিএফআরআই, এসসিএ, বিএআরআই মোট ৮ টি এজেন্সি কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। বর্তমানে এ প্রকল্পে ৭২১ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগকৃত আছে। কর্মকর্তা-কর্মচারীগনের নিয়োগপত্রের ৫নং শর্ত অনুসরণপূর্বক অর্থমন্ত্রনালয়ের ২৬/০১/২০১০ খ্রি. জারীকৃত স্মারক নং- অম/অবি/বাজেট/১১ বিবিধ-৫২/২০০৩(অংশ-২)/৩৫- মোতাবেক বেতন ভাতাদী প্রদান করা হচ্ছে এবং অর্থমন্ত্রনালয়ের ২৪/১১/২০১৩ খ্রিঃ জারীকৃত স্মারক নং- ০৭.১১১.০৩১.০১.০০.০০২.২০১০.৭৬০ মোতাবেক মূল বেতেনের ২০% মাহার্য্যভাতা প্রদান করা হচ্ছে। অর্থ মন্ত্রনালয়, অর্থ বিভাগ ১৪/০১/২০১৬ তারিখে জারীকৃত স্মারক নং ০৭.১১১.০.০১.০০.০০৫.২০১০-১৫ এবং ৪নং শর্ত অনুযায়ী এই প্রকল্পের কর্মকর্তা/কর্মচারীগন জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ পাওয়ার যোগ্য। পরিকল্পনা কমিশনের ফসল ইউং কর্তৃক ২৮/০৭/২০১৫ তারিখে জারীকৃত স্মারক নং- ২০.৩১২.০১৪.০১.০১.১৬৯.২০১৪ (অংশ-১)-১৫৯ পিইসি সভার কার্যবিবরনীতে আইএপিপি প্রকল্পে নিয়োগকৃত কর্মকর্তা/কর্মচারীনের জাতীয় বেতনস্কেল ২০১৫ বাস্তবায়নের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থের সংস্থান রাখার জন্য একমত পোষন করা এবং আরডিপিপি’তে প্রয়োজনীয় অর্থের সংস্থান রাখার জন্য সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় এবং সুপারিশ করা হয়।এরপরেও প্রকল্প পরিচালক মহোদয় প্রায় ৭২১ জন কর্মকর্তা/কর্মচারীদের জন্য ৮ম জাতীয় পে- স্কেল’২০১৫ প্রদান করছেন না। দেশের উত্তর ও দক্ষিনাঞ্চলের ৮ জেলার প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর প্রায় সাড়ে ৬ লক্ষ নারী-পুরুষেরভাগ্য উন্নয়নের লক্ষ্যে আইএপিপি’র কর্মকর্তা/কর্মচারীবৃন্দ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। যার ফলে ইতোমধ্যেই প্রকল্পটি প্রধানমন্ত্রী ও কৃষিমন্ত্রীর সন্তুষ্টি অর্জনসহ দেশি-বিদেশী বিভিন্ন সংস্থা’র দৃষ্টি আকর্ষন করেছে। বিশ^ ব্যাংক প্রকল্পটিকে সারা বিশে^র হতদরিদ্র মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য “ টেকসই মডেল” হিসেবে গ্রহন করেছে। এ কারণে দাতা সংস্থা এঅঋঝচ প্রকল্পটি’র ২য় ধাপের জন্য আর্থিক সাহায্য দিতে চাচ্ছে কিন্তু সেখানেও বর্তমান প্রকল্প পরিচালক মহোদয়ের উদাসিনতা, সেচ্ছাচারিতা ও খামখেয়ালিপনার কারণে প্রকল্পের ২য় ধাপের বিষয়টি আলোর মুখ নাও দেখতে পারে। মানববন্ধন ও ১ দিনের কর্মবিরতি পালনের পরও কোন ব্যবস্থা না নেওয়ার দাবিতে ৮ম জাতীয় বেতনস্কেল’২০১৫ বাস্তবায়নের দাবীতে মানববন্ধন ও কর্মবিরতি লাগাতার কর্মবিরতি পালন করা হচ্ছে।