আতংকে শিক্ষার্থী ও অভিবাবকরা কলাপাড়ার পক্ষিয়াপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বেহাল দশা

0
SAMSUNG CAMERA PICTURES

 

SAMSUNG CAMERA PICTURES
SAMSUNG CAMERA PICTURES

সোলায়মান পিন্টু, কলাপাড়া : পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার পক্ষিয়াপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টির ভবন ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় শিক্ষার্থীদের পাঠদানে একেবারে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। ১৯৯৫ সালে নির্মিত এ বিদ্যালয়ের পিলার, ছাদ ও দেয়াল ভেঙ্গে যে কোন সময় ঘটতে পারে  বড় ধরনের দূর্ঘটনা। ক্লাস চলাকালীন সময় এই বিদ্যালয়ের শিক্ষক, ১’শ ৯৫ জন শিক্ষার্থীসহ সকল অভিভাবকরা থাকেন আতঙ্কের মধ্যে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, ভবনটির খোয়া সিমেন্ট বালি  খসে গিয়ে প্রায় সবগুলো পিলারের রড বেরিয়ে এসেছে। পলেস্তারা  উঠে দেয়ালের ইট উকি দিচ্ছে। আর দরজা জানালা ভেঙ্গে গেছে অনেক দিন আগেই। ঝুঁকিপূর্ন এই ভবনে বর্তমানে শুধু পঞ্চম শ্রেনীর ক্লাস ও স্কুলের দাপ্তরিক কার্যক্রম চলছে। বিদ্যালয়ের পার্শ্ববর্তী রাখাইদের কমিউনিটি সেন্টারে চলছে চতুর্থ শ্রেনীর ক্লাস ।

শিক্ষার্থীদের এক অভিবাবক মোঃ বশির উদ্দিন জানান, ছেলে মেয়েদের স্কুলে পাঠিয়ে সারাক্ষন ভয়ে থাকি। কখন জানি কোন দূর্ঘটনা ঘটে। স্কুলের নতুন ভবন না হলে আমাদের ছেলে মেয়েদের লেখাপড়া ক্ষতির সম্মুখিন হবে।

বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মং তেনথান বলেন, ১৯৯৫ সালে বিদ্যালয়ের এ ভবনটি নির্মান করা হয়। ভবনটির এমন বেহাল দশা হওয়ায় আমরা সারাক্ষন খুব আতংকের মধ্যে থাকি।  স্কুলে শিক্ষার্থিদের উপস্থিতির হার দিনদিন  কমে যাচ্ছে।

প্রধান শিক্ষক আঃ রাজ্জাক জানান, শিক্ষকদের অন্যত্র  গিয়ে ক্লাস নেওয়ায় নানাবিধ সমস্যা হচ্ছে। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ গত জুন ও সেপ্টেম্বর মাসে দুইদফা লিখিতভাবে তাদের সমস্যার কথা  উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে জানিয়েছেন। এখন পর্যন্ত চোখে পড়ার মত কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ আরিফুরজ্জামান সাংবাদিকদের জানান, এ বিদ্যালয়ের বেহাল অবস্থার কথা লিখিত ভাবে শিক্ষা মন্ত্রানালয় ও জেলা শিক্ষা অফিসারকে জানানো হয়েছে।

এলজিইডি’র উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ আবদুল মান্নান জানান, কিছু দিনের মধ্যেই ওই বিদ্যালয়ের ভবন নির্মানের জন্য দরপত্র আহ্বান করা হবে।