আমন ধান কাটার শ্রমিক সঙ্কট

2

কে এম সোহেল, আমতলী প্রতিনিধিঃ বরগুনার আমতলী ও তালতলী  উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে আমন ধান কাটার ধুম পড়েছে। তবে সর্বত্র কৃষি শ্রমিকের অভাব দেখা দিয়েছে। ফলে ধান কাটতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। অন্যান্য বারের তুলনায় এবার আমন ভালো ফলন হলেও ধানের দর তেমন ভালো না থাকায় কৃষকের মুখে হাসি নেই।

তারপরও কৃষি শ্রমিকের মূল্য খুবই চড়া। দৈনিক দু-বেলা খাবার দিয়ে ও ৩ শ’ থেকে ৩৫০ টাকা দিয়েও শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে কৃষকরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। এতে করে নির্ধারিত সময়ে ধান কেটে ঘরে এনে পুনরায় আবার বোরোর জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে। এখন পুরোদমে ধান কাটার মৌসুম চলছে। তাই এখানকার কৃষকরা পার করছেন ব্যস্ত সময়। কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে আমন আবাদ হয়েছে ৩৮ হাজার ৫শ  হেক্টর।

বিভিন্ন হাট-বাজারে নতুন ধান উঠলেও বেচা-কেনা খুবই কম। মোটা ধান প্রতিমণ ৬০০ টাকা থেকে ৬৫০ দরে বিক্রি হচ্ছে। পূর্বচিলা  গ্রামের কৃষক মো কামাল পাশা  জানান, বড় আশা নিয়ে আমন ফসল করেছিলাম। কিন্তু ন্যায্যমূল্য আমরা পাইনি। এ ফসল করতে প্রচুর টাকা ব্যয় হয়েছে। আমন ফসল করতে যে টাকা খরচ করেছি তা উঠবে না। চলতি আমন মৌসুমে কৃষকরা ইউরিয়াসহ বিভিন্ন সার বেশি দামে কিনে দিয়েছিল। তারপর আবার বেশি দামে মজুরি দিয়ে ধান রোপণসহ বিভিন্ন ধরনের পরিচর্চা করেন। বিভিন্ন এলাকা সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, কৃষি শ্রমিকের অভাবে ধান কাটা যাচ্ছে না। শ্রমিকের অভাবের কারণ হচ্ছে যে, অনেকেই রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে কর্মস্থলে চলে গেছেন। আবার কেউ কেউ বিদেশে চলে গেছেন। দিনবদল পালার সাথে সাথে সবকিছু পরিবর্তন হয়ে যাচ্ছে।