ইউপি নির্বাচন বাউফলে বিদ্রোহীরা দলীয় প্রার্থীদের গলার কাঁটা

0

 

অতুল পাল, বিশেষ প্রতিনিধি : আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বাউফলে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ ও বিএনপিতে বিদ্রোহী প্রার্থীরা দলীয় প্রার্থীদের জন্য গলার কাঁটা হয়ে দাড়াতে পারে বলে আশংকা করছেন রাজনীতিবিদরা। ক্ষমতাসিন আওয়ামী লীগ ও বিএনপি উভয় দলেই প্রায় সমান সংখ্যক বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে দলীয় সূত্র। উভয় দল থেকেই বিদ্রোহীদের মনোনয়ন প্রত্যাহারের নির্দেশনা দেয়া হলেও সেটা কাজে আসবেনা বলে জানিয়েছেন প্রার্থীরা ।

তথ্য সূত্র থেকে জানা গেছে, বাউফলের ১৫টি ইউনিয়নের মধ্যে ১১ টি ইউনিয়নে আগামী ২২ মার্চ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। বাকি ৪টি ইউনিয়নের সাথে সীমানা বিরোধ নিয়ে বাউফল পৌরসভার মামলা থাকায় এখন নির্বাচন হবে না। বাউফল উপজেলা আওয়ামী লীগ বর্ধিত সভার মাধ্যমে তাদের প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করলেও আওয়ামী লীগের অপর একটি গ্রুপ জেলা আওয়ামী লীগের সুপারিশসহ তাদের পছন্দের প্রার্থীদের তালিকা কেন্দ্রে পাঠালেও তাদের মধ্যে কেউই নৌকা মার্কা পায়নি। এখন ওই তালিকাভূক্তরাই আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মাঠে রয়েছেন। একই অবস্থা বিএনপির মধ্যেও। তবে সংখ্যার দিক দিয়ে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ১১ এবং বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী ৪ জন। বিদ্রোহীদের সম্পর্কে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আবদুল মোতালেব হাওলাদার জানান, বিদ্রোহী প্রার্থীদের মনোনয়ন প্রত্যাহার করার জন্য বলা হয়েছে। প্রত্যাহার না করলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক প্রভাষক সহিদুর রহমান তালুকদার বলেন, তাদের কোন বিদ্রোহী প্রার্থী নেই। যদি কেউ দলীয় নাম ভাঙ্গিয়ে নির্বাচন করেন তবে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে। সরেজমিন ভোটারদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, কেবলমাত্র চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়নেই আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জয়লাভ করার সম্ভবনা রয়েছে। উভয় দলেরই বাকি বিদ্রোহীদের জয়ের আশা ক্ষীণ। এক্ষেত্রে বিদ্রোহীদের সাথে দলীয় প্রার্থীদের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের সম্ভাবনা রয়েছে। তবে দলীয় নির্দেশনা বিদ্রোহীরা কতটুকু মানবেন সেটা ২ মার্চ মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের সময় শেষ হবার পরেই কেবল বোঝা যাবে।