ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে কুয়াকাটা সেজেছে নতুন সাজে

0

 

কুয়াকাটা প্রতিনিধি ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত সেজেছে নতুন সাজে। এবারে ঈদুল আযহায় প্রচুর সংখ্যক পর্যটকের সমাগম হবার সম্ভাবনা রয়েছে বলে ধারনা করছেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা । আর এ উপলক্ষ্যে হোটেল মোটেল ও পর্যটনমূখী ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো আগাম প্রস্তুতি নিয়েছে।

ইতোমধ্যে আবাসিক হোটেলগুলোতে আগাম বুকিং দিয়ে রাখছে পর্যটকরা এমনটাই জানিয়েছেন হোটেল মালিকরা। আবাসিক হোটেল, খাবার হোটেল, ঝিণুকের দোকানসহ পর্যটনমুখী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোকে ধুয়ে মুছে নতুন সাজে সাজাচ্ছেন। আগত পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে আগাম প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলে জানাগেছে।

স্থানীয়রা জানিয়েছে, কুয়াকাটার সাথে সারা দেশের সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি হয়েছে। ফলে অল্প সময়ে মধ্যে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য অবলোকন করতে পারবেন এখনে আগত দর্শনার্থীরা। তাই বিগত বছরে পর্যটকদের সমাগম কম থাকলেও এ বছর ঈদুল আযহার ছুটিতে প্রচুর সংখ্যক পর্যটকদের আগমনের সম্ভাবনা দেখছেন পর্যটনমুখী ব্যবসায়ীরা। আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর বিশ্ব পর্যটন দিবসকে সামনে রেখে পর্যটন কর্পোরেশনের তরফ থেকে ব্যাপক প্রচার প্রচারণা চালানো হলে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যরে লীলাভূমি কুয়াকাটায় ঈদ পরবর্তী সময়ে দেশী-বিদেশী প্রচুর সংখ্যক পর্যটকদের আগমন ঘটবে এমন আশা করছেন ব্যবসায়ী সংগঠনগুলো। তবে চলমান দূর্যোগপূর্ণ আবওহাওয়া কিছুটা হলেও ভাবিয়ে তুলেছে পর্যটনমুখী ব্যবসায়ীদের।

ঝিণুক ব্যবসায়ী বায়েজিত জানান, ঈদের পর প্রচুর সংখ্যক পর্যটকদের আগমনের সম্ভাবনাকে মাথায় রেখে শামুক ঝিনুক, রাখাইন বস্ত্র সামগ্রীসহ হরেক রকম মালামাল আগাম মজুদ রেখেছেন। আবাসিক হোটেল নিলাঞ্জনা ইন্টারন্যাশনালের ব্যবস্থাপক মোঃ নজরুল ইসলাম বলেন, ঈদের আগের দিন থেকে ৩০সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অধিকাংশ রুমই অগ্রিম বুকিং হয়ে গেছে।

কুয়াকাটা হোটেল মোটেল ওর্নাস এসোসিয়েশনের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সৈকত হোটেলের মালিক মোঃ জিয়াউর রহমান শেখ জানান, বর্তমানে কুয়াকাটার সাথে সারা দেশের উন্নত সড়ক যোগাযোগ, মান সম্পন্ন থাকা খাওয়া, খুব অল্প সময়ে স্বল্প ব্যয়ে এখন পর্যটকরা কোন জামেলা ছাড়াই কুয়াকাটার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য অবলোকন করতে পারবেন। তাই চলতি বছর প্রচুর পর্যটকদের আগমনের সম্ভাবনা দেখছেন তারা। জিয়া আরও জানান, তার হোটেলের অধিকাংশ রুমই আগামী ১০ অক্টোবর পর্যন্ত অগ্রিম বুকিং হয়ে গেছে।

এ ব্যাপারে কুয়াকাটা ট্যুরিষ্ট পুলিশ জোন-এর এএসপি মীর ফসিউর রহমান জানান, ঈদের দিন ও ঈদ পরবর্তী সময়ে দূর্গাপুজা পর্যন্ত পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঢেলে সাজানো হচ্ছে। এ বিষয়ে গত ১৬ই সেপ্টেম্বর ট্যুরিষ্ট পুলিশ ও কলাপাড়া থানা পুলিশের সহযোগিতায় উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নিয়ে স্থানীয় পর্যটনমুখী ব্যবসায়ীদের সাথে একটি মতবিনিময় সভা করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, ট্যুরিষ্ট পুলিশ ছাড়াও কলাপাড়া থানা পুলিশসহ একাধিক আইন শৃঙ্খলা বাহিনী নিরাপত্তায় নিয়োজিত থাকবেন। # # #