কলাপাড়ায় ক্ষমতাসীন দলের অভ্যন্তরীন কোন্দল

0

গোফরান পলাশ, কলাপাড়া প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের অভ্যন্তরে ক্রমশ: স্পষ্ট উঠছে অভ্যন্তরীন কোন্দল। বিগত উপজেলা পরিষদ, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের পর দলীয় ইফতার ও দোয়া মিলাদ অনুষ্ঠানে বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে ওঠায় সাধারন মানুষের মাঝে বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। এতে স্থানীয় সাংসদ ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মো: মাহবুবুর রহমানের নেতৃত্বে দলে সংকট সৃষ্টি হয়েছে বলে দাবী করছেন আওয়ামীলীগের নির্ভরযোগ্য একাধিক সূত্র।
জানা যায়, শনিবার কলাপাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগ আয়োজিত কুমারপট্রিস্থ দলীয় অফিসে ইফতার ও দোয়া মিলাদ অনুষ্ঠানে কলাপাড়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল মোতালেব তালুকদার, কলাপাড়া পৌরসভার মেয়র বিপুল চন্দ্র হাওলাদার, কুয়াকাটা পৌরসভার মেয়র আবদুল বারেক মোল্লা, আ’লীগ থেকে সদ্য নির্বাচিত বেশ কয়েকজন ইউপি চেয়ারম্যান সহ মূল দল ও সহযোগী সংগঠনের অনেক প্রভাবশালী নেতা এ ইফতার ও দোয়া মিলাদ অনুষ্ঠানে অনুপস্থিত ছিলেন। ইফতার ও দোয়া মিলাদের একই অনুষ্ঠানে জেলা আ’লীগের সভাপতি এ্যাডভোকেট মোঃ শাহজাহান মিয়া, সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের প্রশাসক খান মোশাররফ হোসেন ও যুগ্ম সাধারন সম্পাদক কাজী মোঃ আলমগীর হোসেনকে উপজেলা ইউনিটের পক্ষ থেকে সংবর্ধনা প্রদান সহ স্বর্নের কোটপিন পরিয়ে খুশী করা হয়। কিন্তু তারপরও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক কাজী মোঃ আলমগীর হোসেন তার বক্তব্যে উপজেলা চেয়ারম্যান ও দু’পৌর মেয়রের অনুপস্থিতির বিষয়টি আলোচনায় এনে দলের ভেতর জামাত-বিএনপি’র অনুপ্রবেশ ঠেকানো সহ দলীয় নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করার জন্য উদ্যোগ গ্রহনের কথা বলেন। এছাড়া সম্প্রতি পৌরশহরে স্লুইজগেটের নিয়ন্ত্রন ও আধিপত্যের বিস্তার নিয়ে বর্তমান সাংসদ ও মেয়র গ্রুপের সমর্থকদের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ ও পাল্টা-পাল্টি মামলা দায়েরের ঘটনায় পৌর শহর সহ তৃনমূলে দলীয় কোন্দলের বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে ওঠে। এদিকে বর্তমান সাংসদের অনুসারী হিসাবে পরিচিত লতাচাপলি ইউনিয়ন আ’লীগ সভাপতি ডা: সিদ্দিকুর রহমান বিশ্বাস কুয়াকাটা মেয়রের ছোট ভাই আনসার মোল্লা কর্তৃক লাঞ্চিত হওয়ার বিষয়টি এবং লতাচাপলি ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত পেয়ার ম্যান মো: সাঈদ ফকিরের বাসভবনে হামলা-ভাঙচুরের বিষয়টি দলীয় কোন্দলের বহি:প্রকাশ বলছেন একাধিক দলীয় সূত্র।
এ বিষয়ে আ’লীগ থেকে সদ্য নির্বচিত কুয়াকাটার মেয়র ও আ’লীগ কুয়াকাটা পৌরসভা ইউনিট সভাপতি আবদুল বারেক মোল্লা বলেন, উপজেলা পরিষদ, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের পর থেকে দলের ভেতর কিছুটা প্রভাব পড়েছে। দলীয় ইফতার অনুষ্ঠানে তার অনুপস্থিত থাকার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি কৌশলে এড়িয়ে যান।
কলাপাড়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল মোতালেব তালুকদার মুঠোফোনে এ প্রতিবেদকের সাথে এ বিষয়ে কোন কথা বলতে রাজি হননি।