কলাপাড়ায় জোছনা উৎসব অনুষ্ঠিত

8

গোফরান পলাশ, কলাপাড়া বিশেষ প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় এই প্রথম বারের মতো অনুষ্ঠিত হলো জোছনা উৎসব। উপজেলার আন্ধারমানিক নদীতে ভাসমান নৌযানে রবিবার সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলে এ উৎসব। কলাপাড়া ট্রাভেলার্স ক্লাবের উদ্যোগে এ জোছনা উৎসবে সরকারি কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, স্কুল-কলেজের শিক্ষক, বে-সরকারি উন্নয়ন সংস্থার কর্মকর্তা, সাংবাদিক ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্য সহ প্রায় শতাধিক ব্যক্তিবর্গ অংশ নেন।অনুষ্ঠানের অংশ হিসেবে ছিল জোছনা বরন, পুথিপাঠ, বাউল গান, জোছনার গান, কবিতা আবৃত্তি, অভিনয় ও নৌ-ভ্রমন। গভীর রাত পর্যন্ত নদীতে খোলা আকাশের নিচে জোছনা উপভোগ ও সাংস্কৃতিক আয়োজনে উপস্থিত সকলেই মুগ্ধ।অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পটুয়াখালী-৪ আসনের সাংসদ মো: মাহবুবুর রহমান, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল মোতালেব তালুকদার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবিএম সাদিকুর রহমান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এস এম রাকিবুল আহসান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো. মোস্তফা কামাল, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বিলকিস জাহান, সহকারী কমিশনার(ভূমি) বিপুল চন্দ্র দাস, স্বাস্থ কর্মকর্তা ডা: মো. আবদুল মান্নান, মৎস্য কর্মকর্তা মো. কামরুল ইসলাম, কৃষি কর্মকর্তা মো. মশিউর রহমান, কলাপাড়া থানার ওসি জি এম শাহনেওয়াজ সহ পৌর কাউন্সিলর বৃন্দ। এছাড়া শিক্ষক, এনজিও প্রতিনিধি, ব্যবসায়ি ও বিভিন্ন গনমাধ্যম কর্মী এ জোছনা উৎসবে উপস্থিত ছিলেন।জোছনা উৎসবে অংশ নেয়া সাংস্কৃতিককমী মোস্তফা জামান সুজন বলেন, সারা বছরের কর্ম ক্লান্তি ভুলে এ ধরনের প্রকৃতির সৌন্দর্য অবলোকন আমাদের মনকে আরো বিশালতর করে তুলতে পারে। কলাপাড়া ট্রাভেলার্স ক্লাবের সভাপতি মাঈন উদ্দীন আহমেদ জানান, এই প্রথম বারের মত আমাদের এলাকায় এ উৎসবটি পালিত হয়েছে। এতে সকলের স্বত:স্ফুর্ত অংশগ্রহনে জোছনা উৎসব সফল হয়েছে। সকলের সহযোগিতা পেলে প্রতিবছর এ উৎসব পালনের পরিকল্পনা রয়েছে।উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ বি এম সাদিকুর রহমান বলেন, ব্যতিক্রমি এ জোসনা রবন উৎসব আয়োজনে আমি মুগ্ধ।উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল মোতালেব তালুকদার জানান, সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় এবারের এ জোছনা উৎসব শতভাগ সফল হয়েছে। আগামীতে ভিন্ন আঙ্গিকে এ উৎসব আরো আকর্ষণীয় করে তোলার জন্য উপজেলা পরিষদ থেকে সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন তিনি।