কলাপাড়ায় নতুন করে ১০৪ জনের মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় অন্তর্ভূক্তির আবেদন

1

 

গোফরান পলাশ, কলাপাড়া বিশেষ প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় মহান মুক্তিযদ্ধের দীর্ঘ বছর পর নতুন করে ১০৪ জনের মুক্তিযাদ্ধার তালিকায় অন্তর্ভূক্তির আবেদন করায় বিষয়টি মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী রাজনৈতিক ব্যক্তি এবং সচেতন উপকূলবাসীর কাছে প্রশ্নবোধক হয়ে ড়াড়িয়েছে।

জানা যায়, কলাপাড়া উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধা তালিকাভুক্ত হবার জন্য ইতোমধ্যে যারা ২০১৪ সালে অনলাইনে আবেদন করেছিলেন তাদের মধ্যে ১০৪ জনের নামের তালিকা জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল (জামুকা) থেকে কলাপাড়া মুক্তিযোদ্ধা সংসদে এসে পৌঁছেছে। আগামী ১৪ জানুয়ারি কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে এদের যাচাই বাছাই অনুষ্ঠিত হবে।- এমন ত্তথ্য নিশ্চিত করেছেন কলাপাড়া  মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডার বদিউর রহমান (বণ্টন)।

এদিকে কলাপাড়ায় নতুন করে ১০৪ জনের মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় অন্তর্ভূক্তির আবেদন নিয়ে জনমনে শুরু হয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। ১৯৭১ সালে যুদ্ধকালীন সময় এরা কে কোথায় ছিল?  কার বয়স কত ছিল? এরা কে কোথায় যুদ্ধ করেছে? এমন হাজারো প্রশ্ন বিরাজমান।

এ বিষয়ে কলাপাড়া থানা ভবন আক্রমণ পরিচালনাকারী বীর মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কলাপাড়া কমান্ডের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার হাবিবল্লাহ রানা আক্ষেপের সাথে বলেন, উল্লেখিত ১০৪ জনের মধ্যে মাত্র ৭/৮ জন তালিকাভুক্ত হওয়ার যোগ্য বাকিরা সবাই ভুয়া।

প্রসংগত: ১৯৭১ সালের ৬ই ডিসেম্বর কলাপাড়া থানা আক্রমনকালীন ৫৩ জন মুক্তিযোদ্ধার মধ্যে কলাপাড়ার বাসিন্দা ছিলেন ৮ জন। এরা হলেন হাবিবুলায়াহ রানা, মরহুম রেজাউল কারিম বিশ্বাস, এসএম নাজমুল হুদা সালেক, শাহালম তালুকদার, সাজ্জাদুল ইসলাম বিশ্বাস, আরিফুর রহমান খান মুকুল, নায়েক আহম্মদ আলী, নায়েক আশরাফ আলী। বাকিরা সবাই বাউফল, পটুয়াখালী, বাখেরগঞ্জ ও গলাচিপার মুক্তিযোদ্ধা।