কলাপাড়ায় নদী দখল করে তোলা হচ্ছে বহুতল স্থাপনা

0

গোফরান পলাশ, কলাপাড়া প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার আন্ধারমানিক-চাকামইয়া-টিয়াখালী দোন নদী দখল করে এবার বহুতল স্থাপনা তোলা হয়েছে। কেরামত হাওলাদার নামের এক প্রভাবশালী ব্যক্তি এ স্থাপনা তুলছেন। ভূমি অফিসের মাত্র আধা কিলোমিটার দুরে নতুন বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকায় এ বহুতল স্থাপনাটি তোলা হচ্ছে। অথচ রহস্যজনক কারনে এটি অপসারন কিংবা উচ্ছেদে কেউ কোন পদক্ষেপ নিচ্ছেনা। একই চিত্র আন্ধারমানিক নদী পাড়ের। আমির ব্যাপারী নামের এক নব্য ধণাঢ্য ব্যবসায়ী পুরনো লঞ্চঘাট সংলগ্ন মাছ বাজার এলাকায় নদীর তীরসহ নদী দখল করে তুলছে অবৈধ স্থাপনা। শুধু আমির ব্যাপরী নয় লঞ্চঘাট এলাকায় একাধিক প্রবাশালীর রয়েছে অবৈধ স্থাপনা। এমনকি পটুয়াখালী-৪ (কলাপাড়া-রাঙ্গাবালী) আসনের সাংসদ মো: মাহবুবুর রহমানের ভাগিনেয়ী নিগার সুলতানা মিলির ও রয়েছে নদী পাড়ে অবৈধ স্থাপনা। এভাবে একের পর এক নদী দখল করে স্থাপনা তোলায় নদী ভরাট হয়ে মরে যাচ্ছে। আর এতে পরিবেশ ও প্রতিবেশের উপর বিরুপ প্রভাব পড়লেও নদীর এ অবৈধ দখল ঠেকাতে ভূমি প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ম্যানেজ হয়ে যাওয়ার অভিযোগ তুলছেন সচেতন মহল। পরিবেশ বিদদের মতে নদীর এই দখল ঠেকানো প্রয়োজন নইলে নদী দু’টির অস্তিত্ব একসময় সঙ্কটে পড়বে। একসময় অন্যান্য ব্যবসায়ীরাও ভূমি অফিসকে ম্যানেজ করে নদী দখল করে অবৈধ স্থাপনা তোলার কাজ শুরু করে দিবেন।

 

এ ব্যাপারে কলাপাড়া সহকারী কমিশনার (ভূমি) মি: দীপক কুমার রায় জানান, নদীর অবৈধ দখলদার উচ্ছেদে শীঘ্রই অভিযান চালানো হবে।

 

কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাসুদ হাসান পাটোয়ারী জানান, দখলদারদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।