কলাপাড়ায় নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় অর্ধশত আহত ॥ গ্রেফতার-৬

0

কলাপাড়া প্রতিনিধিঃ  নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায়  কলাপাড়ার নীলগঞ্জ ও চাকামইয়া ইউনিয়নে বসত ঘর ভাংচুর এবং উভয় পক্ষের অর্ধশত ব্যক্তি আহত হয়েছে। এঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে কলাপাড়া থানা পুলিশ পরাজিত মেম্বর প্রার্থী মহিবুল্লাহসহ ছয় জনকে আটক করেছে।

আহতদের সূত্রে জানাগেছে, বুধবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে নীলগঞ্জ ইউনিয়নের তিন নং ওয়ার্ডের কুমিরমারা গ্রামের পরাজিত মেম্বার প্রার্থী মো. মহিবুল্লাহ এবং কবির গাজী সমর্থকদের মধ্যে নির্বাচন নিয়ে বিরোধের জের ধরে সশস্ত্র হামলা পাল্টা হামলা হয়। এতে কবির গাজী (৩৭) ও তার সমর্থক এবং স্বজন হেলাল গাজী, বাবুল গাজী, রাসেল হাওলাদার, রেজাউল মিয়া, মুছা মীরা, কাদের হাওলাদার, মাসুদ গাজী, জাকির গাজী, রাহীমা বেগম আহত হয়। অপর দিকে আহত হয় মহিবুল্লাহ ও তার সমর্থক এবং স্বজন শহীদুল গাজী, আলতাফ গাজী, মন্নান গাজী, হাসন গাজী ও আসাদুল্লাহ গাজী। আহতদের মধ্যে আশঙ্কাজন অবস্থায় করিব গাজী, হেলাল গাজী, বাবুল গাজী, মুসা মীরা, কাদের হাওলদার এবং রাহিমা বেগমকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া আরো প্রায় ২০ জন আহত হয়েছে।

এদিকে বুধবার বেলা ১১টার দিকে চাকামইয়া ইনিয়নের নয় নং ওয়ার্ডের আনিপাড়া গ্রামে বিজয়ী  মেম্বর প্রার্থী মো. রফিকুল ইসলাম ভোটারদের বাড়ি দেখা করতে গেলে তার সমর্থকদের ওপর হামলা চালানো হয়। পরাজিত প্রার্থী  মো. রফিক হাওলাদারের সমর্থকরা হামলাচালিয়ে দুলাল ফরাজী, জালাল শিকদার, রাকিবুল নেগাবান ও জাকির নেগাবানকে পিটিয়ে আহত করে। আহতরা কলাপাড়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। বিজয়ী প্রার্থী রফিকুল ইসলাম জানায়, ভোটারদের বাড়ি বাড়ি দেখা করতে গেলে মকবুল দফাদারের নির্দেশে তার ছেলে রাকিবুল ও ফেরদৌসের নেতৃত্বে এক দল সন্ত্রাসী আমার সমর্থকদের ওপর হামলা চালিয়ে আহত করে। এরপর আমার সমর্থক বাচ্চু হাওলাদার ও মোস্তাক মাওলানার বাড়ি ভাংচুর করে। তাদের সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ধামাচাপা দেওয়ার জন্য মকবুল দফাদার তার নিজ বাড়ি ভাংচুর করে একটি অভিযোগ দায়ের করিয়েছেন।

এব্যাপারে কলাপাড়া থানার ওসি জি.এম শাহ্নেওয়াজ জানায়, ঘটনার পর পরই নীলগঞ্জ এবং চাকামইয়া ইউনিয়নে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তবে নীলগঞ্জের সহিংস ঘটনার সাথে জড়িত থাকায় পরাজিত মেম্বার প্রার্থী মহিবুল্লাহসহ ছয় জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এখন পরিস্থিতি শান্ত ও স্বাভাবিক রয়েছে। এঘটনায় মামলা দায়ের হলে তদন্ত করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।