কলাপাড়ায় বাল্য বিয়ের কবল থেকে রক্ষা পেল হালিমা

1

গোফরান পলাশ, বিশেষ প্রতিনিধি কলাপাড়া: কলাপাড়ায় এনজিও কর্মকর্তা, ওসি ও জন প্রতিনিধিদের হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ের কবল থেকে রক্ষা পেল হালিমা। শুক্রবার সকালে উপজেলার চম্পাপুর ইউনিয়নের পাটুয়া গ্রামের পূর্ব পাটুয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরী মাহাতাব খা এবং আসমা বেগমের কন্যা হালিমার বাল্য বিয়ের সকল আয়োজন পন্ড হয়ে যায় এনজিও কর্মকর্তা, ওসি ও জন প্রতিনিধিদের হস্তক্ষেপে। বাল্য বিয়ের কবল থেকে রক্ষা পাওয়া হালিমা বেগম পূর্ব পাটুয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর শিক্ষার্থী। জানা যায়, শুক্রবার মাহাতাব খান তার স্কুল পড়–য়া মেয়ে হালিমার বিয়ের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেন। এদিন সকালে বাল্য বিয়ের এ বিষয়টি চম্পাপুর ইউপি চেয়ারম্যান রিন্টু তালুদার, ইউপি সদস্য কামাল তালুকদার, সংরক্ষিত ইউপি সদস্য মিনারা বেগম, আভাস কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম ও ওসি আলাউদ্দীন মিলনের উপস্থিতে মুচলেকা দিয়ে বিয়ে বাতিল করেন হালিমার অভিভাবক।ইউপি সদস্য কালাম তালুকদার বলেন, বাল্যবিয়ের হাত থেকে এবারের মত একটি মেয়ে রক্ষা পেয়েছে।  আভাস কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম জানান, বাল্যবিয়ে একটি সামাজিক ব্যাধি। আমরা দীর্ঘদিন ধরে এনিয়ে কাাজ করছি। শুক্রবার সকালে বাল্যবিয়ের বিষয়টি জানতে পেরে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান, জনপ্রতিনিধি এবং ওসির সহয়িতায় বিয়েটি বন্ধ করি। চম্পাপুর ইউপি চেয়ারম্যান রিন্টু তালুকদার জানান, সকলের উপিস্থিতে ১৮ বছর বয়সে মেয়েকে বিয়ে দেয়ার মুচলেকা দেন মেয়ের বাবা মাহাতাব।