কলাপাড়ায় ভূমি অধিগ্রহন প্রক্রিয়া বন্ধের দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ ও সংবাদ সম্মেলন

4

 

কলাপাড়া বিশেষ প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার টিয়াখালী ইউনিয়নের তিনটি ওয়ার্ডের কয়েক’শ নারী-পুরুষ বুধবার সকালে সেনা কল্যাণ সংস্থার নামে ভূমি অধিগ্রহন প্রক্রিয়া বন্ধের দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ ও সংবাদ সম্মেলন করেছেন। এসময় সাধারণ কৃষকরা প্রয়োজনে জীবন দিয়ে তাদের ভিটেমাটি এবং কৃষি জমি রক্ষার  ঘোষণা দেয়। পূর্ব টিয়াখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে এ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন টিয়াখালী ইউপি চেয়ারম্যান মো: মাহমুদুল হাসান সুজন মোল্লা, কৃষক রাজ্জাক মুসুল্লী, নুরুদ্দিন খান, রশিদ হাওলাদার, আপ্তের হাওলাদার, মোঃ অলিউল্লাহ, মাকসুদ তালুকদার, হাসান মোল্লা, জাহানারা বেগম, মোখলেসুর রহমান, সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।

শতবর্ষী কৃষক কাদের মোল্লা জানান, সরকার পোর্ট করছে। বিদ্যুত কেন্দ্র করছে, আমরা জমি দিছি। কিন্তু কোন বেসরকারি সংস্থাকে কৃষি জমি কিংবা বসতভিটার জমি দিমুনা। জমি দেলে আমরা থাকব কোথায়। আপ্তের হাওলাদার জানান, যদি মরতে হয় মরমু। আমরা এক কড়া জমিও দিমু না।

টিয়াখালী চেয়ারম্যান মো: মাহমুদুল হাসান সুজন মোল্লা জানান, এলাকার মানুষ সরকারের কাছে আবেদন করেছে তাদের জমিজমা যেন কোন বে-সরকারি সংস্থা না নেয়। কিছুদিন আগে টিয়াখালী ইউনিয়নের ৫, ৬ ও ৭ নম্বর ওয়ার্ডের বিরাট এলাকা নিয়ে সেনা কল্যান সংস্থার লোকজন পরিমাপ করে করে লাল পতাকা দেয়ার পর থেকে সাধারণ মানুষের মধ্যে ভিটেবাড়ি থেকে চাষের জমি হারানোর প্রবল শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

এ ব্যাপারে কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাসুদ হাসান পাটোয়ারী জানান, যা কিছুই করা হবে জনগণের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা কিংবা বোঝাপড়ার মধ্য দিয়েই হবে। এখানে কোন ভুল বোঝাবুঝির অবকাশ নেই।

প্রসংগত, সেনা কল্যান সংস্থার সীমানার মধ্যে কৃষিজমি-বাড়িঘরের পাশাপাশি ১০টি স্কুল, ১৫টি মসজিদ, চার শ’ বাড়িঘর, চারটি মাদ্রাসা, দেড়শ’ গভীর নলকুপ ও শত শত কবরস্থান রয়েছে।