কলাপাড়ায় শিক্ষক কতৃক শিশু নির্যাতিত

0

03

 

গোফরান পলাশ, কলাপাড়া: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় মাহফিলে যাওয়ার অপরাধে নয় বছরের এক মাদ্রাসা শিক্ষার্থীকে গুরুতর শারিরীক নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে। আহত শিশু গাজীপাড়া দাখিল মাদ্রাসার চতুর্থ শ্রেনীর ছাত্র ও চাকামইয়া ইউনিয়নের তাজউদ্দিন’র পুত্র নিজামকে কলাপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আশংকাজনক অবস্থায় চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়েছে।

 

আহত শিশু নিজামের বাবা তাজউদ্দিন ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাতে প্রাইভেট পড়তে না গিয়ে মসজিদের তালিমী মাহফিলে অংশগ্রহন করায় শিশুটিকে রাতেই ডেকে পাঠায় মাদ্রাসা শিক্ষক আনোয়ার। নিজাম আসার পর এই অপরাধে তার হাত-পা বেধে মাদ্রাসার আড়ার সাথে টানিয়ে বেদম মারধর করা হয় তাকে। ওই রাতেই মারধরে অসুস্থ হয়ে পড়ে নিজাম। রাতে আসে প্রচন্ড জ্বর। ক্রমান্বয়ে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পরা নিজামকে বর্তমানে চিকিৎসার জন্য কলাপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা  হয়েছে।

 

শিক্ষার্থীর বাবা তাজুল ইসলাম আরও জানান, তিনি তার ছেলেকে মারধরের বিষয় মাদ্রাসার সুপারকে বলে বিচার চেয়েছেন। কিন্তু কোন প্রতিকার পাননি।

 

আহত শিশু নিজাম জানায়, তাকে ধরে নিয়ে একটি চেয়ারের ওপরে দাঁড় করিয়ে দুই হাত জঙ্গলের লতা দিয়ে আড়ার সঙ্গে বেঁধে নিচের চেয়ারটি সরিয়ে ফেলেন। এরপর ঝুলন্ত অবস্থায় তার শরীরে ও পাছায় পেটানো হয়।

 

কলাপাড়া হাসপাতালের চিকিৎসক ডাঃ মাহবুব জানান, চিকিৎসা চলছে। শিশুটির শরীরে এখনও মারধরের চিহ্ন রয়েছে।

 

কলাপাড়া থানার ওসি মোহাঃ আজিজুর রহমান জানান, তিনি এ সংক্রান্ত কোন লিখিত অভিযোগ পান নি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

অভিযুক্ত শিক্ষক আনোয়ার হোসেন জানান, একটু শাসন করা হয়েছে। এটিকে তার বিরুদ্ধে এলাকার চক্রান্ত বলেও দাবি করেন তিনি।

এ রিপের্টি লেখা পর্যন্ত এ বিষয়ে কলাপাড়া থানায় অভিযোগ দায়েরের প্রস্তুতি চলছিল।