কলেজ ছাত্রীকে উত্যক্ত ও মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

0

স্টাফ রিপোর্টারঃ পটুয়াখালীতে কলেজ ছাত্রীকে উত্যক্ত’র প্রতিবাদ করায় ভাই ও চাচাকে কুপিয়ে জখম এবং মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেফতারের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন।

রবিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় পটুয়াখালী প্রেস ক্লাবে এ সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ওই ছাত্রীর মা মোসাঃ কহিনুর বেগম। এ সময় তিনি বলেন,তার মেয়ে নাদিয়া আক্তার (১৮) পটুয়াখালী সরকারী মহিলা কলেজে বি,এ অনার্স বাংলা প্রথম বর্ষের ছাত্রী। সে কলেজে যাওয়া আসার পথে প্রতিবেশী কাঞ্চন বাদশার বখাটে সন্ত্রাসী ছেলে মনিরুল ইসলাম প্রায়শই তার মেয়েকে উত্যক্ত করাসহ বিভিন্ন রকমের কু-প্রস্তাব দেয়। তার প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় সে জোর পূর্বক অপহরন করিয়া নেওয়াসহ বিভিন্ন রকমের হুমকি দেয়। বিষয়টি প্রথমে মনিরুলের অভিভাবক ও পরে স্থানীয় গন্য-মান্য ব্যক্তিদের জানাইলে আসামীরা ক্ষিপ্ত হইয়া ঘটনার দিন ও সময় পূর্বকল্পিতভাবে দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্র নিয়া ওই ছাত্রীর ভাই মেহেদী হাসান ও চাচা সোবাহান মৃধাকে লাউকাঠী বাজারে খুন-জখমের উদ্দেশ্যে কোপাইয়া ও পিটাইয়া রক্তাক্ত জখম করে। এ সময় আসামীরা নগদ টাকাসহ স্বর্নালংকার ছিনাইয়া নেয়। তাদের ডাকচিৎকারে স্বাক্ষীরা আসিয়া উদ্ধার করিয়া পটুয়াখালী ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করে। ঘটনার পরেরদিন ২২ সেপ্টেম্বর রাতে তিনি মামলা করার জন্য সদর থানায় গেলে তার মামলা না নিয়ে অপর পক্ষের দ্বারা মিথ্যা অভিযোগে একটি মামলা রুজু করেন। পরে মেহেদী হাসান ও সোবাহান মৃধাকে থানা পুলিশ ওই মিথ্যা মামলায় গ্রেফতার করে। তিনি ২৪ সেপ্টেম্বর পটুয়াখালী বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ১ম আমলী আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। যার সি,আর নং ৫০৬/২০১৬। বিচারক মামলাটি ওসি পটুয়াখালী সদর থানাকে মেডিকেল সাটিফিকেট সংগ্রহ পূর্বক প্রতিবেদন দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। সংবাদ সম্মেলনে প্রেস ক্লাব সাধারন সম্পাদক মুফতি সালাহ উদ্দিন,সাবেক সভাপতি গোলাম কিবরিয়া ও  মোঃ জাফর খানসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকটিক মিডিয়ার সাংবাদিক গন উপস্থিত ছিলেন।