কুয়াকাটার সমুদ্র সৈকতে ঘুরে বেড়ানো এখন পর্যটকদের কাছে বিপজ্জনক

3

 

গোফরান পলাশ, কলাপাড়া প্রতিনিধি: সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত খ্যাত কুয়াকাটার সমুদ্র সৈকতে ঘুরে বেড়ানো এখন পর্যটকদের কাছে বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে।

জানা যায়, যোগাযোগ ব্যবস্থার বৈপ্লবিক পরিবর্তন হওয়ায় সারা বছর পর্যটকদের পদচারনায় সরব থাকছে কুয়াকাটা। কিন্তু প্রকৃতির রুদ্র রোষে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে সমুদ্র। বঙ্গোপসাগরের ঢেউয়ের তান্ডবে অব্যাহত বালু ক্ষয়ের ফলে দিনকে দিন সমুদ্র গর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতের ১৮ কি.মি. দীর্ঘ বেলাভূমি। ইতোমধ্যে বিলীন হয়ে গেছে বহু মূল্যবান স্থাপনা, ঐতিহাসিক নিদর্শন, জাতীয় উদ্যান, ম্যানগ্রোভ বনাঞ্চল। সৈকতের ৮ কি.মি. এলাকার  বেলাভূমি জুড়ে ছড়িয়ে আছে এসব ধ্বংস্তুপের ইটপাথরের খন্ড ও বিভিন্ন উপড়ে পড়া গাছের  গোড়ার অংশ। বিলীন হয়ে যাওয়া এসব স্থাপনার মূল অবকাঠামো সরিয়ে নেয়া হলেও ইটপাথরের খন্ড গুলো পড়ে আছে মাটির ভেতর। বালু ক্ষয়ের ফলে সেসব এখন জেগে উঠেছে। ভাটার সময় এগুলো  দেখা গেলেও জোয়ারের সময় থাকে পানির নিচে। ফলে সমুদ্র স্নানে নেমে আনন্দে বিভোর পর্যটকরা না বুঝেই এসব ভাংগা কংক্রিট কিংবা গাছের গোড়ায় প্রতিনিদিই আহত হওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে। ট্যুরিস্ট গাইড ও ফটো গ্রাফাররা ঝুঁকিপূর্ণ কিছু এলাকায় লাল নিশান উড়িয়ে চিহ্নিত করে  রেখেছেন পর্যটকদের নির্বিঘেœ চলাচলের সুবিধার্থে। এগুলো দ্রুত সরিয়ে  নেয়ার দাবী করেছেন পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা।

কুয়াকাটা সী-বীচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সভাপতি, পটুয়াখালী  জেলা প্রশাসক এ কে এম শামিমুল হক সিদ্দিকী জানান, এসব দ্রুত অপসারণ করা হবে।