কুয়াকাটায় ঝুঁকি নিয়ে চলছে ভাড়ায় চালিত পর্যটকবাহী স্পিড বোট

22

গোফরান পলাশ, বিশেষ প্রতিনিধি: পর্যটনকেন্দ্র কুয়াকাটায় ঝুঁকি নিয়ে চলছে ভাড়ায় চালিত পর্যটকবাহী স্পিড  বোট। দ্রুতগামী ওইসব  বোট গুলো পর্যটকদের নিয়ে গভীর সমুদ্রে ছুটে যায় আবার একই স্থানে  বেপরোয়া গতিতে এসে  নোঙ্গর করে। এর ফলে সমুদ্রে গোসলে থাকা পর্যটকরা আতঙ্কিত হয়ে সমুদ্র সৈকতে ছুটে আসে। স্পিড  বোটের উৎপাতে  দেশি-বিদেশি পর্যটকরা নির্বিঘেœ সমুদ্রে  গোসল না করতে  পেরে  ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

দেখা  গেছে, দ্রুতগামী স্পিড  বোটগুলো বিকট শব্দ করে ঝুঁকি নিয়ে অতিরিক্ত পর্যটক নিয়ে গভীর সমুদ্রে ছুটে যায়। বিভিন্ন স্থানে ঘুরে আবার একই স্থানে বেপরোয়া গতিতে এসে  নোঙ্গর করায় কুয়াকাটায়  বেড়াতে আসা পর্যটকরা বিরক্ত হয়ে সমুদ্রে  গোসল ও নির্বিঘেœ সাঁতার কাটতে না  পেরে  হোটেল রুমে ফিরছেন। রাজশাহীর রাজপাড়া এলাকা  থেকে কুয়াকাটা  বেড়াতে আসা পর্যটক দম্পতি  মোঃ ইরফান শফি জানান, পর্যটকদের নিয়ে সমুদ্র চষে  বেড়ানোর জন্য এটি আলাদা বিনোদন। কিন্তু এ স্পিড  বোট গুলোতে অদক্ষ চালকদের কারনে  যে  কোন সময় দূর্ঘটনা ঘটতে পারে। এছাড়া এ গুলো  ছেড়ে যাওয়া ও  নোঙ্গর করার নির্দিষ্ট স্থান থাকা প্রয়োজন।

অপর এক পর্যটক  মো: ইয়াকুব আলী সাগর জানান, পর্যটকের বিনোদন  সেবায় লাইফ জ্যাকেটবিহীন ঝুঁকিপূর্ণ ওই সকল স্পিট  বোট ব্যবহৃত হচ্ছে। যার ফলে সামগ্রিক বিনোদনের পাশাপাশি রয়েছে সমুদ্রে ডুবে মৃত্যুর ঝুঁকি। এ ব্যাপারে যথাযথ কর্তৃপক্ষের নজরদারী প্রয়োজন।

 

কুয়াকাটা ট্যুরিজম’র প্রতিনিধি জনি আলমগীর বলেন, এক শ্রেণির পর্যটকদের কাছে স্পিট  বোটে ভ্রমণ আনন্দদায়ক। তাই  গোসলের স্থান থেকে স্পিট  বোটগুলোকে অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে বিনোদনের ব্যবস্থা করলে অনাহুত দুর্ঘটনা এড়ানো সম্ভব হবে।

 

কুয়াকাটা ট্যুরিস্ট পুলিশ’র সিনিয়র এএস পি মীর ফসিউর রহমান জানান, বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। স্পিড  বোট গুলোকে  গোসল করার স্থান  থেকে অনত্র সরিয়ে  নেয়ার সিদ্ধান্ত  নেয়া হয়েছে।