কুয়াকাটায় প্রতারক শশুরের খপ্পরে জামাই॥ গোপনে স্বামীকে তালাক ॥

0

 

মনিরুল ইসলাম,মহিপুর প্রতিনিধিঃ কুয়াকাটায় প্রতারক শশুর জামাই বাবুর ৮ লক্ষ ৪২ হাজার টাকা আত্মসাত করে নিজের মেয়ের দ্বারা গোপনে তালাক দিয়েছে এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে জামাই বাবু সাংবাদিক সম্মেলন করেছে। গতকাল সকাল ১০টায় মহিপুর প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করেন। এসময় উপস্থিথ ছিলেন, মহিপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি হাবিবুল্লাহ খান রাব্বী, সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলপাম, মোশারেফ হোসেন, একরামিন খান, হাফিজুর রহমান আকাশ প্রমুখ।

লিখিত বক্তেবে জামাই সজিব মিয়া জানান, মহিপুর থানার আলীপুর বন্দরের হাজী আব্দুল আজিজ ওরফে ভর্তা আজিজ’র মেয়ে মোসাঃ মারুফা আক্তারের সাথে ০১/০৭/২০১৩ সালে শরীয়াত মোতাবেক পারিবারিক ভাবে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হই। আমার শশুর কুয়াকাটার জমির দালালি করে এখন আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ। বিভিন্ন সময় দেশী বিদেশী ভূমি ক্রেতাদের কাছ থেকে টাকা আত্মসাত করেছে। ওই পাওনাদারেরা আটক করলে ৪ লক্ষ ৭৭ হাজার টাকা আমার কাছ থেকে নিয়ে সেখান থেকে ছাড়া পায়। আজ দেবো কাল দেবো বলে বিভিন্ন তারিখে টাকা না দেয়ায় মহিপুর ব্যাবসায়ীরা এ নিয়ে স্থানীয় পর্যায় শালিস বৈঠক করলে ও অদ্যবদি টাকা দেয়নি। আমি একজন মহিপুরের কাপড় ব্যাসায়ী। আমার প্রতিষ্ঠানের নাম সজিব বস্ত্রালয়। টাকার জন্য শালিশ বৈঠক করায় আমার স্ত্রীকে দিয়ে নানা কৈশল করে। প্রতারণার এমনই কৌশল গোপনে ১০/০৪/২০১৬ইং ৫নং নীলগঞ্জ ইউনিয়নের কাজী দেলোয়ার হোসেনের মাধ্যমে তালাক দিয়ে নয়া, কৌশলে আমার সংসারী করতে থাকে। এরই ধারাবাহিকতায় গত ঈদুল ফিতরের দুই দিন পূর্বে ০৫/০৬/২০১৬ইং আমার স্ত্রী ভোর রাতের দিকে আমার জমানো ৩ লক্ষ ৬৫ হাজার টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়। মাছে কোচ লড়ায়- ঠিক এমই এক ছন্দের বাস্তব প্রমান মিলছে- যেমন, আমার টাকা আমার স্ত্রী ও শশুরে আত্মসাত করে উল্টো আমার বিরুদ্ধে মহিপুর থানায় ২৯/০৬/২০১৬ইং নির্যাতনের অভিযোগ করেছে শশুর। বিভিণœ সময় আজিজ মিয়া মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করবে বলে হুমকী দিচ্ছে। এটা একটি মানবাধিকার লংঘন হয়েছে। ঘটনাটি মানবাধিকার সংগঠন ও প্রশাসনের উর্দ্বোতন কর্তৃপক্ষ সড়ে জমিনে তদন্ত পূর্বক অপরাধী যেই হোক তার দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তি দাবী করেন। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত হাজী আব্দুল আজিজের কাছে জানতে চাইলে বলেন, আমি নিজেও একজন ক্রিমিনালি মানুষ, আপনারাতো জানেন। তার পরেও আপনারাও তদন্ত করেণ উপযুক্ত প্রমান দিতে পারলে আমি টাকা ফেরৎ দিতে বাধ্য থাকবো।