কুয়াকাটা পৌর নির্বাচন মেয়র প্রার্থীদের হলফনামার সাথে বাস্তবের অসঙ্গতি!

0

 

04কুয়াকাটা প্রতিনিধিঃ কুয়াকাটা পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে ৫জন প্রার্থী লড়ছেন। এরা সকলেই রাজনৈতিক দলের মনোনিত মেয়র প্রার্থী। কুয়াকাটা পৌরসভায় মেয়র পদে যারা লড়ছেন তাদের দেয়া নির্বাচনী হলফনামায় যা লিখেছেন জনগণের জানাশোনার সাথে তার অসঙ্গতি রয়েছে বলে অনেকেই তাদের মতামতে জানিয়েছেন।

 

কুয়াকাটা পৌরসভায় এনপিপি’র প্রার্থী রাবেয়া খাতুন ১৫ ভরি স্বর্নালংকারের মালিক। কামিল পাস এবং পেশায় গৃহিনী, তার ব্যাংকে কোন টাকা নেই। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’র প্রার্থী মো. নুরুল ইসলাম মুসুল্লীরও নেই ব্যাংকে কোন টাকা পয়সা। ৮ম শ্রেণি পাস, পেশায় কৃষি উল্লেখ করলেও তার কৃষি জমি এবং আয়-ব্যয়ের খাত লেখা নেই। নিজের কোন বাড়ি-ঘর রয়েছে কীনা তাও বলা হয়নি তার হলফনামায়। বাস্তবেও এলাকার লোকজনের কাছে ও দুই মেয়র প্রার্থী রাজনৈতিক দলের সদস্য হিসেবে পরিচিত নন।

 

৮ম শ্রেণি পাস জাপা (এ) প্রার্থী মো. আনোয়ার হোসেন হাওলাদারের নগদ টাকা আছে মাত্র ৫০ হাজার। ব্যাংকে জমা রয়েছে দুই লাখ টাকা। তবে তার স্ত্রীর নামে ৪০ ভরি স্বর্নালংকারসহ আট দশমিক ৪৫ একর কৃষি জমি ও ৭৫ দশমিক ২৫ একর অকৃষি জমি, একটি বাড়ি এবং তিনটি বানিজ্যিক পাকা দালানের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে তিনটি মামলা থাকলে দু’টি মামলা নিস্পত্তি ( নং জিআর ৩১৪/১২, সিআর ৪৩৩/১২) এবং সিপি ৯৯/১৩ মামলাটি খারিজ হয়ে গেছে বলে জানানো হয়েছে। তবে ন্যাশনাল ব্যাংক কুয়াকাটা শাখায় তার নামে ২৫ লাখ টাকা দেনা রয়েছে বলে হলফনামায় বলা হয়। তার রাজনৈতিক দল জাপা’র (এরশাদ) সদস্য হিসেবে পরিচিতি থাকলেও হলফনামায় ব্যবসায়ী হিসেবে দেখানো হয়েছে।

 

এসএসসি পাস বিএনপি মনোনিত মেয়র প্রার্থী মো. আবদুল আজিজ মুসুল্লীর নিজ নামে মাত্র ৮০ হাজার টাকা ও নির্ভরশীলদের নামে এক লাখ নগদ টাকা রয়েছে। ব্যাংকে জমা আছে মাত্র ৩০ হাজার টাকা। স্বর্নালংকার রয়েছে ১৫ ভরি। নিজ নামে আট দশমিক ২০ একর, স্ত্রীর নামে দশমিক ৫০ শতাংশ ও নির্ভরশীলদের নামে চার দশমিক ৭০ একর কৃষি জমি রয়েছে। অকৃষি জমি রয়েছে নিজ নামে এক দশমিক ৩৩ একর, স্ত্রীর নামে দশমিক ০.১৫০ শতক ও নির্ভরশীলদের নামে দশমিক ০.০৭ শতক জমি রয়েছে। নিজ নামে একটি টিনের ঘর ও নির্ভরশীলদের নামে রয়েছে একটি সেমি পাকা ঘর। তিনি হলফ নামায় পেশা হিসেবে কৃষি উল্লেখ করলেও জাতীয় পার্টি থেকে এসে বিএনপির সাথে দীর্ঘদিন ধরে রাজনীতি করছেন। বর্তমানে তিনি কুয়াকাটা পৌর বিএনপির আহবায়ক।

এছাড়া নবম শ্রেণি উত্তীর্ণ আ’লীগ মনোনিত মেয়র প্রার্থী আঃ বারেক মোল্লার নগদ টাকা রয়েছে মাত্র ৫০ হাজার। ব্যাংকে রয়েছে ৫০ হাজার টাকা। নিজ নামে পাঁচ ভরি ও স্ত্রীর নামে আট ভরি স্বর্নালংকার ছাড়াও তার নিজ নামে রয়েছে এক দশমিক ৫১ একর ও স্ত্রীর নামে দশমিক ১৩ একর কৃষি জমি। অকৃষি জমি রয়েছে এক দশমিক ৮৩ একর। একটি বসত ঘর ছাড়াও রয়েছে পাঁচটি দোকান ঘর। তবে কৃষি ব্যাংক কুয়াকাটা শাখায় তার নামে দেড় লাখ টাকা ঋন রয়েছে। তার বিরুদ্ধে অতীত ও বর্তমানে কোন মামলা নেই এবং পেশায় তিনি নিজেকে ব্যবসায়ী হিসেবে দাখিল করা হলফনামায় উল্লেখ করেছেন। বাস্তবে তিনি দীর্ঘদিন ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত এবং বর্তমানে কুয়াকাটা পৌর আওয়ামী লীগের সভাতির দায়িত্ব পলন করছেন। সেই সাথে বিপুল অর্থসম্পত্তির মালিক হিসেবেও অনেকের দাবি।

২০১০ সালে প্রতিষ্ঠিত এবং প্রথমবারের মতো ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হতে চলা কুয়াকাটা পৌরসভায় মোট ভোটার রয়েছে ৬ হাজার ৮ শ’ ৪৫ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৩ হাজার ৪ শ’ ৯৫ জন এবং নারী ভোটার রয়েছেন ৩ হাজার ৩ শ’ ৫০জন।

###