গলাচিপায় অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ

4

সোহাগ রহমান,গলাচিপা প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর গলাচিপায় পল¬ী বিদ্যুতের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের যোগসাজশে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগের মাধ্যমে অটোবাইকসহ বিভিন্ন যানবাহনের ব্যাটারি চার্জের ব্যবসা জমজমাট হয়ে উঠেছে। এতে কর্তৃপক্ষ বিপুল রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে এবং লোডশেডিংয়ের মাত্রাও বেড়ে গেছে। এসব বিষয়ে বিভিন্ন মহল থেকে অভিযোগ উঠলেও ব্যবস্থা নেয়নি সংশি¬ষ্ট কর্তৃপক্ষ। তবে এ ব্যাপারে পল্ল¬ী বিদ্যুৎ সমিতির কোন মাথা বেথা নেই। অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ ব্যাবহারকারীদের বিরুদ্ধে জরিমানা ও আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার আইন থাকলেও পল¬ী বিদ্যুতের অসাধু কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা সাইট লাইন ব্যবহারকারীর সঙ্গে গোপনে আঁতাত করে মাসোহারা নিয়ে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনে যাচ্ছেন। তবে এ দাবি অস্বীকার করে সংশিষ্ট কর্তৃপক্ষ বলেছেন ভিন্ন কথা। মাসোহারার কথা অস্বীকার করে তারা বলেছেন, মাঝে মধ্যে অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্নসহ জরিমানা করা হয়েছে। জানা গেছে, গলাচিপা উপজেলার পল¬ী বিদ্যুতের মোট লাইন সংখ্যা প্রায় ১৮ হাজার ৮শত ৮১জন এর মধ্যে আবাসিক গ্রাহক ১৪ হাজার ১শত ৩৮জন , বাণিজ্যিক ৩ হাজার ৬শত ৮১ জন, শিল্প ১৫৩টি, বৃহত্তর শিল্প ১টি এবং অন্যানা ৩৮৬টি। এ ব্যাপারে পটুয়াখালী পল¬ী বিদ্যুৎ সমিতি গলাচিপা এড়িয়া অফিসের ডিজিএম সঞ্জিব কুমার মন্ডল জানান, সাইট কানেকশন ও অবৈধ লাইন সংযোগ সম্পর্কে তার জানা নেই।

এদিকে, সরজমিন পর্যবেক্ষণে জানা যায়, গলাচিপা পৌরসভার পুরাতন লঞ্চঘাট এলাকার অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগকারী ফখরুল ইসলামের স্ত্রী মোসাঃ রাশিদা বেগম, প্রায় দেড় বছর ধরে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগের মাধ্যমে মাসিক চুক্তির ভিত্তিতে ইজিবাইকসহ বিভিন্ন ব্যাটারিচালিত যানবাহনে চার্জ প্রদান করে মাসে প্রায় ১ লাখ টাকা আয় করে আসছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন ইজিবাইকচালক জানান, প্রধান সাহেব একা এ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত নন, পল¬ী বিদ্যুতের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরাও এর সাথে জড়িত। দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা এত বড় একটি চার্জার ব্যবসা কর্তৃপক্ষের নজরের বাইরে ছিল এ কথা বিশ্বাসযোগ্য নয়, কারণ এলাকার মানুষ দীর্ঘদিন ধরে অভিযোগ করলেও কর্তৃপক্ষ নীরব ছিল। তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। অবৈধ সংযোগকারী রাশিদা বেগম সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে, তিনি বলেন, বিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সংযোগটি অবৈধ ছিল না, পল¬ী বিদ্যুতের বিধান অনুযায়ী আবাসিক সংযোগ থেকে ব্যবসায়িক কার্যক্রমে বিদ্যুৎ ব্যবহার করে আসছি। ব্যবসায়িক খাতে আমার এ বিদ্যুৎ ব্যবহারের বিষয়টি পল¬ী বিদ্যুতের কর্মকর্তাগণ অবহিত ছিলেন।