গলাচিপায় চাঞ্চল্যকর ইলিয়াস খুন ও ব্যাংক গার্ড আহতের ঘটনায় সাবেক স্ত্রীকে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদ

2

 

নাসির উদ্দিন গলাচিপা বিশেষ প্রতিনিধিঃ গলাচিপার পানপট্টি ইউনিয়নে চাঞ্চলকর ইলিয়াস খুন ও কৃষি ব্যাংকের নাইট গার্ড দেলোয়ারকে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করার ঘটনায় এক নারীকে থানায় আনা হয়েছে। ছাহেরা বেগম সারাকে (৩২) পানপট্টির সেন্টার বাজার থেকে শনিবার রাতে গলাচিপা থানা পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে আসা হয় বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে। ছাহেরা বেগম সারা ইলিয়াস খাঁর সাবেক স্ত্রী। গলাচিপা থানার অফিসার ইন চার্জ আ. রাজ্জাক মোল্লা জানান, সন্দেহভাজন হিসাবে নিহত ইলিয়াসের স্ত্রীকে জিজ্ঞাবাদ করা চলছে। মামলার তদন্তের স্বার্থে এখন কিছু বলা সম্ভব নয়।

গত ১৩ মার্চ রাত সাড়ে ৯টার দিকে পানপট্টির প্রান কেন্দ্র সেন্টার বাজারের প্রায় ২০০ ফুট দক্ষিণ পাশে প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন নির্জন স্থানে ইলিয়স খাঁকে জবাই করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। স্থানীয় কৃষি ব্যাংকের নৈশ প্রহরী এ ঘটনা দেখে ফেলায় র্দুবৃত্তরা তাকেও খুনের চেষ্টা করে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে। দেলোয়ার দৌড়ে পালিয়ে অন্যত্র চলে যাওয়ায় মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা পায় বলে জানান তার বাবা রশিদ দফাদার জানান।তিনি আরো জানান, তার ছেলে দেলোয়ার এখনও বরিশাল শেবাচিমে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে। দেলোয়ারের ঘাড়ে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের কারণে এখন স্বাভাবিকভাবে কথা বলতে ও খেতে পারছেনা না।

স্থানীয় নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, নিহত ইলিয়াস খাঁর বাড়ি উপজেলার গোলখালী ইউনিয়নের নলুয়াবাগী গ্রামে হলেও তিনি গত ১৫ বছর যাবত পানপট্টি ইউপি’র রতেœশ^র গ্রামে নানা ছত্তার সিকদারের বাড়িতে থেকে কাঠের ব্যবসা ও ভ্যান চালাতো। কয়েক বছর আগে তিনি ওই এলাকায় নিজে একটি বাড়ি করেছেন। স্থানীয় সূত্র জানায়, প্রায় ১৪ বছর আগে একই ইউপি’র সতিরাম গ্রামের লতিফ চৌকিদারের মেয়ে ছাহেরা বেগম সারাকে ইলিয়াস বিয়ে করেন। কয়েক বছর না যেতেই সারা বেগম ইলিয়াসকে তালাক দেয়। এ ঘরে তাদের মিম (১০) নামের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। স্ত্রী সারা চলে যাওয়ার পর কাজীকান্দা গ্রামের আ. বারেকের মেয়ে পারুল বেগমকে (২৫) বিয়ে করে। এ ঘরে তাদের জামিল (৫) নামে একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। এদিকে ইলিয়াস খাঁয়ের সাথে ছাড়াছাড়ি হওয়ার পর সারা বেগমের আরও ২টি বিয়ে হয়। তুলাতলী গ্রামের মজিবর মাতবরের ছেলে এমাদুলকে বিয়ে করে। সে বিয়েও বেশিদিন টিকেনি। এরপর ঢকার এক মাংস বিক্রেতার সাথে বিয়ে হয়। সে সংসারও বেশিদিন টিকেনি বলে জানা যায়।