গলাচিপায় টিআর প্রকল্পের চাল মেম্বারের পেটে !!

1

সোহাগ রহমান, গলাচিপা ঃ গলাচিপা ইউনিয়ন পরিষদের ১নং ওয়ার্ডের মেম্বার প্রকল্প সভাপতি মোঃ শহিন মৃধার বিরুদ্ধে টেষ্ট রিলিফ (টিআর) প্রকল্পের ৪ মেট্রিক টন চাল আতœসাতের অভিযোগ উঠেছে। এ ছাড়াও বরাদ্দকৃত টিআর প্রকল্পের সোলার বিদ্যুৎ প্রকল্প বরাদ্দ অনুযায়ী সোলার না দিয়ে হাতিয়ে নেয়া হয়েছে লাখ লাখ টাকা। এসব প্রকল্পের কোনটিতে কাজের অস্তিত্ব নেই, ভূয়া নাম দিয়ে প্রতারনা চলে আসছে দীর্ঘদিন । অথচ শতভাগ সম্পন্ন দেখিয়ে এসব প্রকল্পের নামে বরাদ্দকৃত টাকা উত্তোলন করে নেয়া হয়েছে ।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক সূত্র জানিয়েছে, গলাচিপা সদর ইউনিয়নে ২০১০-১১ অর্থ বছরে কালিকাপুর আলহেরা জামে মসজিদ সংস্কার কর্মসূচির আত্ততায় টিআর ২.০০ মেট্রিক টন, ২০১১-২০১২ অর্থ বছরে কালিকাপুর দারুচ্ছালাম জামে মসজিদ সংস্কার ১.০০ মেট্রিক টন টিআর ও ২০১৪-২০১৫ অর্থ বছরে কালিকাপুর আলহেরা জামে মসজিদে সোলার বাবদ ১.০০ মেট্রিক টন চাল ও গম বরাদ্দ দেয়া হয়। এ ৩টি প্রকল্পের একটি প্রকল্পে সিকি পরিমান কাজও করা হয়নি।

উপজেলার সদর ইউনিয়নের প্রত্যন্ত অঞ্চলের বিভিন্ন মসজিদ সংস্কার করার কথা। কিন্তু সিকি পরিমান কাজ না করে সরকারের লাখ লাখ টাকা আত্মসাত করা হয়েছে । নিয়ম অনুযায়ী কাজ করার পরে সম্পূর্ণ বিল নেওয়া হবে কিন্তু এই মেম্বারের ক্ষেত্রে বিপরীত । তিনি কোন কাজ না করেই ভূয়া বিল ভাউচার করে সম্পূর্ণ টাকা একাই আত্মসাত করেছেন।

সংশ্লিষ্ট এলাকার মুসুল্লিরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে এ প্রতিবেদককে জানান, কোন মসজিদেই কাজ করা হয়নি সম্পূর্ণ টাকাই গলাচিপা সদর ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের মেম্বার মোঃ শাহিন মৃধা আত্মসাত করেছেন। আমরা সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সঠিক তদন্ত দাবি করছি । সঠিক ভাবে তদন্ত করলেই মেম্বার মোঃ শহিন মৃধার থলের বিড়াল বেরিয়ে আসবে।

এব্যাপারে মেম্বার মোঃ শাহিন মৃধা জানান, আমি সম্পূর্ণ কাজ করেছি। আমি কোন কাজে অনিয়ম করিনি। যারা অভিযোগ করেছে সম্পূর্ণ মিথ্যা।

সদর উপজেলার প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ের একাধিক সূত্র জানিয়েছে, মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়িত এসব প্রকল্প সরেজমিনে পরিদর্শন করলে এসব অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগের সত্যতা মিলবে ।

এ ব্যাপারে সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ আমিনুল ইসলাম টিআর নামে লাখ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ অস্বীকার করে এ প্রতিবেদককে জানান, কাজ না কারলে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। কেউ যদি কাজ না করে থাকে তাহলে সেটা দেখা হবে । কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না। #