গলাচিপায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সনদ জালিয়াতির অভিযোগ

29

 

সোহাগ রহমান,গলাচিপা বিশেষ  প্রতিনিধিঃ গলাচিপায় সনদ জালিয়াতি করে প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। ১৭ মাস যাবত অবৈধ প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করছে। উপজেলার চর কাজল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটি ও নিয়োগ বোর্ডে বিরুদ্ধে এই অভিযোগ উঠেছে। অবৈধ এই নিয়োগ বোর্ডের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হলেও মামলার বাদীকে মোটা অংকে টাকার বিনিময় ম্যানেজ করে মামলা খারিজ করে দেয়া হয়েছে।

সূত্র জানায়, ২০১৫ সালের জুলাই মাসের ৫ তারিখ লোক দেখানো বাছাই পরীক্ষার মাধ্যমে চিকনিকান্দী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের গনিতের শিক্ষক মো.জামাল হোসেনকে চর কাজল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ প্রদান করা হয়। প্রধান শিক্ষক পদে আবেদন করতে হলে শিক্ষকতা পেশায় ১২ বছরের অভিজ্ঞতা ও বিএড ডিগ্রি থাকা বাধ্যতা মূলক। জামাল হোসেন সাভারের কোনাবাড়ি ক্যাম্পাসের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় দারুল এহসান থেকে ২০০৮ সালে বিএড পাশের সনদ গ্রহন করে। যা মহামান্য হাইকোট ২৫.০৭.২০১৩ ইং তারিখ ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের ধানমন্ডি ক্যাম্পাস বৈধ্য রেখে বাকী সকল ক্যাম্পস অবৈধ ঘোষণা করেন এবং সকল সনদ বাতিল করে। তাছাড়া বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত অবস্থায় বিএড কোর্স সম্পন্ন করতে হলে কর্মরত প্রতিষ্ঠানে পরিচালনা কমিটির পূর্ব অনুমতি ও ছুটি নিতে হয়। কিন্তু জামাল হোসেন ওই সময় কোটখালী ফাজিল মাদ্রাসায় কর্মরত থাকলেও বিএড কোর্স করার জন্য পরিচালনা কমিটির কাছ থেকে কোন পূর্ব অনুমতি ও ছুটি নেয়নি। এছাড়া নিয়োগ বাছাই পরিক্ষার বোর্ডও বিধি মোতাবেক করা হয়নি। এনিয়ে জনস্বার্থে ওই এলাকা জনৈক আবুল বশার নিয়োগের বোর্ড গঠনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে পটুয়াখালীর সহকারি জজ আদালতে মামলা করে। সম্প্রতি জামাল হোসেন মোটা অংকের টাকার বিনিময় বাদীকে ম্যানেজ করে মামলাটি খারিজ করানো হয়েছে। চরকাজল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি সুলতান আহম্মেদের কাছে নিয়োগে অনিয়ম সর্ম্পকে জানাতে চাইলে তিনি জানান, তার বিএড সার্টিফিটেক অবৈধ আমাদের জানা ছিলনা। প্রধান শিক্ষক জামাল হোসেন বিষয়টি এরিয়ে যাবার অনুরোধ করেন। বলেন ভাই নিউজটি করা লাগবে না । এব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো.হুমায়ুন কবির বলেন, এবিষয়টি নিয়ে আদালতে মামলা চলে ডিজি অফিস এ ব্যাপারে যে সিদ্ধান্ত দেয় সেই সিদ্ধান্ত মোতাবেক আমি ব্যবস্থা গ্রহন করব। আদালতের উপরে আমার কোন হাত নেই।