গলাচিপায় বখাটে যুবক কতৃক শিক্ষিকা লাঞ্ছিত

0

নাসির উদ্দিন গলাচিপা : গলাচিপা সদর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডে বোয়ালিয়া বাধঁ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা আসমা খাতুনকে শ্রেণী কার্যক্রম চলাকালে লাঞ্ছিত করেছে স্থানীয় বখাটে রুবেল মোল্লা নামের এক যুবক। এ ঘটনায় গত ৩০ নভেম্বর গলাচিপা উপজেলা চেয়ারম্যান বরাবরে এক অভিযোগ দায়ের করেন লাঞ্ছিত শিক্ষিকা।

অভিযোগে বলা হয় গত ১৬ নভেম্বর সকালে শ্রেণী কার্যক্রম চলাকালে স্থানীয় বখাটে রুবেল মোল্লা হঠাৎ করে ওই শিক্ষিকার শ্রেনী কক্ষে ঢুকে কোমলমতী শিশুদের পাঠদান কার্যক্রমে বাঁধা সৃষ্টি করে এবং শিক্ষিকা আসমা খাতুনকে ধাক্কা দিয়ে শ্রেণী কক্ষ থেকে বাইরে নিতে চায় । এমতাবস্থায় শিশুরা চিৎকার দিলে তার সহকর্মী আনোয়ার হোসেন ও উপজেলা সমন্বয়কারী কামরুল ইসলাম শ্রেণী কক্ষে উপস্থিত হয়ে রুবেলকে শান্ত হতে বলেন। রুবেল তাদের কথা না শুনে পুণরায় ওই শিক্ষিকাকে গালমন্দ করেন এবং মারার জন্য তেড়ে যায়। স্কুলের কোমলমতি শিশুরা এ অবস্থা দেখে ভয়ে আতঙ্কিত হয় এবং পাঠ দানের মারাত্মক ক্ষতি হয়। অভিযোগে আরো বলা হয় রুবেল একজন মাদকসেবী, বিভিন্ন অপরাধী চক্রের সাথে তার যোগসাজেস রয়েছে। স্কুলের কাছেই তার ফার্মেসিতে ঔষধ বিক্রির নামে সে বিভিন্ন ধরণের মাদক বিক্রিসহ নানা অপকর্ম চালায়। এমন কি রাস্তা দিয়ে কোন পথচারী মেয়ে ও স্কুলের ছাত্রীদের যেতে দেখলে নেশাগ্রস্থ অবস্থায় সে তাদের উদ্দেশে অশালীন উক্তিও করে থাকে। অভিযোগকারী শিক্ষিকা আসমাকে সে প্রায়ই স্কুলে আসা যাওয়ার পথে উত্যক্ত করে। স্কুলে যাওয়াই তার পক্ষে এখন কঠিন হয়ে দাড়িয়েছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করেন তিনি। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হাদিকে এ বিষয় ওই শিক্ষিকা অবহিত করলে বিচারের আশ্বাস দিয়ে তিনি বিচার করেননি। শিক্ষিকা আসমা কোন বিচার না পেয়ে পরে উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে গলাচিপা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বলেন, শিক্ষিকা আসমা আমাকে মাধ্যম করে উপজেলা র্নিবাহী অফিসারকে একটি আবেদন দিয়েছে আমি সেই আবেদন পৌঁছে দিয়েছি।