Tuesday, December 6, 2022
Homeটপ ফোরগলাচিপায় ৪ হাজার কৃষকের মুখে হাসি 

গলাচিপায় ৪ হাজার কৃষকের মুখে হাসি 

হাসান এলাহী গলাচিপা প্রতিনিধিঃ
পটুয়াখালীর গলাচিপায় ১৯৮৮ সন থেকে পলিতে ভরাট হয়ে যাওয়া মরা খাল দীর্ঘ ১৫ বছর পরে পুণঃ খননে ৪ হাজারের উপরে কৃষক উপকৃত হয়েছে। ফলে কৃষক পরিবারগুলোর মুখে ফুটেছে আনন্দের হাসি। উপজেলার চরবিশ^াস ইউনিয়নে গত মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহে এই প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। এপ্রিল মাসের প্রথম সপ্তাহে এর কাজ শেষ হয়েছে। এলজিইডির আওতায় ক্ষুদ্র পানি ব্যবস্থাপনা বিভাগের অর্থায়নে ও উত্তর চরবিশ^াস পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতি লিমিটেডের বাস্তবায়নে প্রায় ১৭ কিলোমিটার খাল পুণঃ খনন করা হয়। এতে বন্যা ও বৃষ্টির অতিরিক্ত পানি নিস্কাশন এবং আমন ও বোরো ধান, তরমুজ, মরিচসহ বিভিন্ন রবি শস্য চাষে কৃষকরা বিশেষ সুবিধা পাবে। এছাড়াও কৃষকরা ওইসব খালে বিভিন্ন প্রকারের মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করতে ও নিজেরাও প্রয়োজনীয় চাহিদা মেটাতে পারবে।সরেজমিন দেখা যায়, পুণঃ খাল খনন প্রকল্পে চরবিশ^াস ইউনিয়নের ২, ৩, ৪, ৫, ৭, ৮ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডের কৃষকরা ব্যাপক লাভবান হবেন। এই ইউনিয়নে আন্নির খাল ৮ দশমিক দুই, মদন হাওলাদার বাড়ির খাল ২ দশমিক চার পাঁচ, চর আগস্তির খাল ৬ দশমিক দুই মোট ১৬ দশমিক আট পাঁচ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে ও ৬০ ফুট প্রস্থের ১৫ ফুট গভীর খাল খনন করা হয়েছে।পূর্ব চর আগস্তি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাইফুল আলম ও স্থানীয় কৃষক মাওলানা মইনুল ইসলাম, আবদুর রাজ্জাক আকন, নাসির উদ্দিন বলেন, ‘বর্ষা মৌসুমে পানি নিস্কাশন না হওয়ায় বীজতলা ও আমন ধান নষ্ট হয়ে যেত এবং রবি মৌসুমে পানির অভাবে বোরো ধান, তরমুজসহ বিভিন্ন ফসলের চাষাবাদ ব্যাহত হত। এখন খাল খনন হওয়ায় আমাদের চাষাবাদে কোন প্রকার ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা নেই।’ স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান তোফাজ্জল হোসেন বাবুল মুন্সি বলেন, ‘১৯৮৮ সনের পরে খালগুলোতে আস্তে আস্তে পলি পরে ভরাট হয়ে যাওয়ায় কৃষকদের চাষাবাদে ব্যাপক সমস্যা হচ্ছিল। খাল খনন করার পরে আশা করি এখন কৃষকদের আর কোন সমস্যা হবেনা।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments