তথ্য প্রত্যাশী সঠিকভাবে তথ্য চাইলে তথ্য কর্মকর্তা তথ্য দিতে বাধ্য –জেলা প্রশাসক

2

স্টাফ রিপোর্টারঃ তথ্য অধিকার আইন ২০০৯ এর ফলে তথ্য প্রত্যাশী সঠিকভাবে তথ্য চাইলে তথ্য কর্মকর্তা তথ্য দিতে বাধ্য তবে কিছু কিছু তথ্য চাইলেও পাওয়া যায়না, যা আইনেই নির্ধারিত আছে। বেশীর ভাগ তথ্য যা সাধারণের প্রয়োজনে লাগে তা পাওয়া যায় এবং তা চাইলে দায়িত্বপ্রাপ্ত তথ্য কর্মকর্তাদের উচিৎ তথ্য প্রত্যাশীদের দেয়া। সাধারণ মানুষকে এ বিষয় আরো বেশী সচেতন হতে হবে, কোন কোন তথ্য পাওয়া যায় এবং তা কীভাবে চাইতে হয়? তিনি বলেন, সরকারি প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকেও তথ্যের অবাধ প্রবাহ সৃষ্টিতে এগিয়ে আসতে হবে। সকল প্রতিষ্ঠানকে তাদের ওয়েব পেইজ নিয়মিত হালনাগাদ করতে হবে, যাতে সাধারন মানুষ ওয়েব পেইজে ঢুকলেই দায়িত্বপ্রাপ্ত তথ্য কর্মকর্তার নাম ও প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে হালনাগাদ তথ্য পেতে পারে। সনাক কর্তৃক আয়োজিত সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত তথ্য কর্মকর্তাদের নিয়ে “তথ্য অধিকার আইন ২০০৯” এর উপর ওরিয়েন্টেশন এর উদ্বোধনী বক্তব্যে এ কথা বলেন।

তথ্যই শক্তি: জানবো, জানাবো, দুর্নীতি রুখবো শ্লোগানকে সামনে রেখে সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) পটুয়াখালীর উদ্যোগে পটুয়াখালীতে জেলা পর্যায়ে কর্মরত বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত তথ্য কর্মকর্তাদের নিয়ে এক ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রামের আয়োজন করা হয়। সকাল সাড়ে ১০ টায় পটুয়াখালীস্থ শের ই বাংলা সড়কে অবস্থিত পটুয়াখালী ক্লাবে অনুষ্ঠিত এ ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রামটি উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক জনাব এ. কে. এম শামিমুল হক ছিদ্দিকী। টিআইবি’র এরিয়া ম্যানেজার মো: হুমায়ুন কবীর এর সঞ্চালনায় কর্মসূচিতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সনাক সভাপতি মো: আবদুর রব আকন এবং ওরিয়েন্টেশনটির ফ্যাসিলিটেটর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন টিআইবি’র বরিশাল ক্লাস্টারের প্রোগ্রাম ম্যানেজার-সিভিক এনগেজমেন্ট চিত্ত রঞ্জন রায়।

অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, জেলা মৎস্য অফিস, এলজিইডি, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর, দুর্নীতি দমন কার্যালয়, জেলা নির্বাচন অফিস,বন বিভাগ, জেলা পরিষদ, সমবায় অফিস, সিভিল সার্জন অফিস, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস, জেলা খাদ্য অফিস, জেলা শিক্ষা অফিস, পানি উন্নয়ন বোর্ড, জেলা তথ্য অফিস, মাদারবুনিয়া ইউনিয়ন পরিষদ উপস্থিত ছিল।

তথ্য কর্মকর্তাদের ওরিয়েন্টেশনে তথ্য অধিকার কেন ও তথ্য অধিকার আইন কী, তথ্য অধিকারের আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপট ও সাংবিধানিক অঙ্গীকার, বাংলাদেশে তথ্য অধিকার আইনের পটভূমি, মানবাধিকার, সুশাসন প্রতিষ্ঠার আন্দোলন ও তথ্য অধিকার আইন, তথ্য অধিকার আন্দোলন ও টিআইবি, তথ্য অধিকার আইন ২০০৯ পরিচিতি, তথ্য কী, তথ্যের ধরণ, তথ্য সংরক্ষণ পদ্ধতি, কোন কোন প্রতিষ্ঠান তথ্য কর্মকর্তা নিয়োগ দিবে, কোন কোন প্রতিষ্ঠানসমূহের জন্য আইনটি প্রযোজ্য নয়, যে ধরণের তথ্য প্রদান বাধ্যতামূলক নয়, স্ব-প্রণোদিত তথ্যের নমুনা ও তথ্যের মূল্য নির্ধারন ফি, তথ্য প্রাপ্তির আবেদনের ভিত্তিতে তথ্য প্রদানে দায়িত্বপ্রাপ্ত তথ্য কর্মকর্তা হিসাবে করণীয়, তথ্য কমিশন: কাঠামো, ক্ষমতা ও কার্যাবলী, তথ্য প্রাপ্তির জন্য আপীল ও অভিযোগ, তথ্য অধিকার লংঘনের জরিমানা ও শাস্তির বিধান  তথ্য সংরক্ষণ ও তথ্য প্রদানের সীমাবদ্ধতা ও উত্তরণের উপায় বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করা হয়।