তালতলীতে স্কুল ছাত্রীর ছবি বিকৃত করায় থানায় মামলা ৫জন কিশোর জেল হাজতে

1

 

আমতলী প্রতিনিধি ঃ বরগুনার তালতলী উপজেলায় নবম শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্রীর ছবি বিকৃত করে   মোবাইল ফোনে ও ইন্টার নেটে ছড়িয়ে দেওয়া অভিযোগে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তালতলী থানায় মামলা হলে মামলার ৫ আসামীকে গ্রেপ্তার করে জেল হাজতে পাঠিয়েছে তালতলী থানা পুলিশ।

ছাত্রীর বাবা জানান, তাঁর মেয়েকে একই বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র  মো: মহিউদ্দিন তাঁর পাঁচ সহপাঠী অভিজিৎ ওরফে কানাই, বিপ্লব, মো: রিয়াজ হোসেন ও মো: বেল্লালকে নিয়ে কয়েক মাস ধরে নানা ভাবে উত্যক্ত করে আসছিল। সম্প্রতি ওই কিশোরেরা তাঁর মেয়েকে বিদ্যালয়ে যাওয়ার পথে কু-প্রস্তাব দেয়। এতে সাড়া না পেয়ে ওই কিশোরেরা মোবাইল  ফোনে কৌশলে মেয়ের ছবি তুলে তা নগ্ন ছবির সঙ্গে মিলিয়ে বিকৃত করে ইন্টারনেটে ও এসএমএসের মাধ্যমে এলাকায় বিভিন্ন লোকজনের মোবাইল ফোনে ছড়িয়ে দেয়। ৮ ফেব্রুয়ারি বিষয়টি জানার পর তিনি ওই কিশোর এবং তার সহযোগীদের সন্দেহ করেন। ওই দিনই তিনি সন্দেহ ভাজন কিশোরের মোবাইল ফোনে বিকৃত ছবিটি খুঁজে পান। এরপর বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকে কাছে অভিযোগ করলে  কিশোরেরা তাকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেন। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের নিকট কোন সুরাহা না পেয়ে তালতলী উপজেলা মাধ্যমিক কর্মকর্তা ও তালতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানালে বিষয়টি তালতলী থানাকে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন। তদন্ত শেষে ঘটনা প্রমান হওয়ায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই ছাত্রীর বাবা ৫ কিশোরের বিরুদ্ধে পনোগ্রাফী আইনে  মো: মহিউদ্দিন ,অভিজিৎ ওরফে কানাই, বিপ্লব, মো: রিয়াজ হোসেন ও মো: বেল্লালকে আসামী করে তালতলী থানায় মামলা করেন। মামলার ৫ আসামীকে রাতে গ্রেপ্তার করে মঙ্গলবার বরগুনার শিশু আদালতের মাধ্যমে তাদের জেল হাজতে পাঠায়।

তালতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বাবুল আখতার জানান, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই ছাত্রীর বাবা থানায় পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রন আইনে মামলা করেন মামলার ৫ আসামীকে গ্রেপ্তার করে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।