দখল হয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী গলাচিপা খাল

1

 

নাসির উদ্দিন  গলাচিপা : গলাচিপা পৌরশহরের প্রাণ কেন্দ্রে গলাচিপা খালটি খনন ও সংস্কারের অভাবে  দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে এলাকার ৩০ হাজার মানুষ। পৌর এলাকার পানি নিস্কাশনের জন্য খালটির গুরুত্ব অনেক বেশি। খালটির মাঝখানে একটি বাঁধ দেওয়ায় দখল হয়ে গেছে দুই পাড়। ফলে বর্ষা ও শুষ্ক মৌসুমে জনসাধারণের চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে ।

অনুসন্ধানে জানাগেছে, প্রায় দেড়শ বছর আগে থেকে গলাচিপা খাল নামে এটি পরিচিত। খালটি গলাচিপা রামনাবাদ নদী থেকে শুরু করে গলাচিপা শহর হয়ে উলানিয়া বন্দরের পাশ দিয়ে  বুড়াগৌরঙ্গ নদীতে মিশেছে। যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে এ খালের গুরুত্ব ছিল অনেক। এক সময় এ খাল দিয়ে প্রতিদিন বড় বড় নৌকা আসা যাওয়া করত । এক একটি নৌকায় ৫শ থেকে ১হাজার মন পণ্য বোঝাই করে দেশের বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করা হত। ব্যস্ততম এ খালটি তখন মাঝি মাল্লাদের ডাক চিৎকারে মুখরিত থাকতো। শুধু তাই নয়, খালটি এ এলাকার পানি নিষ্কাসনের এক মাত্র সহায়ক হিসেবেও ব্যবহার হত। ১৯৯৭ সালে গলাচিপা পৌরসভা গঠন হওয়ার পর খালটিতে অপরিকল্পিতভাবে একটি বাঁধ দেওয়া হয়। এর পর থেকেই সঙ্কুচিত হতে থাকে খালের দুই পাড়। তখন থেকেই জোয়ার ভাটার পানি আসা প্রায় বন্ধ  হয়ে যায়। ধীরে ধীরে বদ্ধ খালে পরিণত হতে থাকে এটি। এখন একটি স্লুইজ দিয়ে কোনো মতে পানি আসলেও তা পর্যাপ্ত নয়। এদিকে খালের দুই পাড়ের জমি দখল করে নিয়েছে দুই পাড়ের প্রভাবশালী মহল। বর্তমানে খালটি আবদ্ধ হওয়ায় কচুরিপানা ও আবর্জনা জমে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে।

গলাচিপা উপজেলা নির্বাহী র্কমকর্তা মাহাবুব আলম জানান, এ খালটি জাইকা প্রজেক্টে নিয়েছে, খুব শিগ্রই তারা কাজ শুরু  করে খালটি খনন করে দু’পাড় বাঁধাই করে দিবে আমরা সে অপেক্ষায় আছি।

এ ব্যাপারে গলাচিপা পৌর মেয়র হাজ্বী আ:ওহাব খলিফার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন খালটির দুইপাড় অবৈধভাবে দখল করে আছে, কিছুদিনের মধ্যেই খালটি দখলমুক্ত করা হবে। সংস্কারের জন্য জাইকা প্রজেক্ট থেকে ৩কোটি ৭১লক্ষ টাকা ব্যায়ে একটি প্রজেক্ট পাস হয়েছে। খুব শিঘ্রই এ কাজটি শুরু হবে।