দশমিনায় নির্বাচনে জামানত হারালেন যারা

5

দশমিনা প্রতিনিধি:পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলায় ২২ মার্চ অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে ৩৮ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন। ৭টি ইউনিয়নের মধ্যে ৫টি ইউনিয়নে প্রথম পর্যায়ে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

উপজেলার আলীপুর ইউনিয়নে ৬জন চেয়ারম্যান প্রতিদ্বন্দ্বীতায় আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বতর্মান চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান সাগর আনারস প্রতীকে ২০ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ জুয়েল ঘোড়া প্রতীকে ৭২ ভোট, বিএনপি প্রার্থী মোঃ নুরুজ্জামান ধানের শীষ প্রতীকে ৪৬২ ভোট, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ প্রার্থী মোঃ ছিদ্দিকুর রহমান হাতপাখা প্রতীকে ১ হাজার ৮৯৬ ভোট,

বেতাগী সানকিপুর ইউনিয়নে ৮জন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রদিদ্বন্দ্বীতায় স্বতন্ত্র প্রার্থী মিজানুর রহমান তিতাস আনারস প্রতীকে ১৪ ভোট, আ’লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী কুলসুম বেগম টেবিলফ্যান প্রতীকে ৩৮ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ সুলতান ভূইয়া চশমা প্রতীকে ২৭৫ ভোট, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ প্রার্থী মোঃ আনিজচুর রহমান হাতপাখা প্রতীকে ৬৫১ ভোট, বিএনপি প্রার্থী মোঃ সাইদুর রহমান পাভেল ধানের শীষ প্রতীকে ৮৬৫ ভোট,

বহরমপুর ইউনিয়নে ৬জন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতায় স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ ফারুক হোসেন ঘোড়া প্রতীকে ৭৭১ ভোট, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ প্রার্থী আবদুস ছালাম হাতপাখা প্রতীকে ৭৮৮ ভোট, বিএনপি প্রার্থী সৈয়দ মাহফুজুর রহমান ধানের শীষ প্রতীকে ১ হাজার ৩৩৩ ভোট, আ’লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী মোঃ মিজানুর রহমান চশমা প্রতীকে ১ হাজার ৫০৩ ভোট,

বাঁশবাড়ীয়া ইউনিয়নে আ’লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী মোঃ আলতাফ হোসেন আনারস প্রতীকে ৪১৬ ভোট, আ’লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী  কে.এম জহিরুল ইসলাম  টেলিফোন প্রতীকে ৫১০ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম মোস্তফা ঘোড়া প্রতীকে ৫৭৯ ভোট, আ’লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী কাজী হুমায়ুন কবির ঢোল প্রতীকে ১ হাজার ৪৩০ ভোট পাওয়ায় জামানত হারায়। এদিকে, উপজেলার দশমিনা সদরে ৩টি ভোট কেন্দ্র স্থগিত থাকায় ফলাফল হয়নি।