দশমিনায় ৪ ব্যবসায়ীসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে মিথ্যা চাঁদাবাজি মামলা ভুক্তভোগীদের সংবাদ সম্মেলন

0

pic-2

রিপন কর্মকার, দশমিনা : পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলায় ৪ ব্যবসায়ীসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে মিথ্যা চাঁদাবাজি মামলা দেয়ায় অভিযোগে ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষে আলহাজ্জ্ব আবু কালাম প্যাদা বুধবার বেলা ১১টায় দশমিনা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি উল্লেখ করেন, মোঃ নুরে আলম সিদ্দিকীর সাথে তাদের জে.এল ৮৪ এর ১০ নং খতিয়ানভুক্ত ১০৫ নং দাগে স্থানীয় মাপের ৮ শতাংশ জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। বিরোধ নিষ্পত্তির লক্ষে স্থানীয় শালিস মানিত করা হয়। শালিসগণ উভয় পক্ষকে রায় না দিয়ে মাসের পর মাস অজ্ঞাত কারনে ঘুরিয়ে রাখে। তিনি জানান, ১৭ জানুয়ারি মোঃ নুর আলম সিদ্দিকী বাদী হয়ে দশমিনা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আমার তিন ছেলেসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে মিথ্যা চাঁদাবাজি মামলা দায়ের করে। ওই মামলায় ১নং আসামী মোঃ নিজাম উদ্দিন আদমপুর সিনিয়র ফাজিল মাদরাসার চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী, ২নং আসামী মোঃ খলিলুর রহমান একজন প্রথম শ্রেণি ঠিকাদার ও ব্যবসায়ী ৩, ৫ ও ৭নং আসামী আমার ছেলে মোঃ হাসান রুবেল সুতা, রমিজ উদ্দিন জুতা ও কসমেটিক ও মোঃ সোহেল রানা শাড়ী-কাপড় ও হার্ডওয়ার ব্যবসা করছে দশমিনা বাজারে। ৪নং আসামী মোজ্জামেল হোসেন বাউফল উপজেলায় আশা ব্যাংকে কর্মরত ও ৬নং আসামী মিজানুর রহমান থানা সংলগ্ন সড়কের পাশে চায়ের দোকানী। মোঃ নুরে আলম সিদ্দিকীর সাথে ২নং আসামী বাদে সকলের জমি নিয়ে বিরোধের কারনে হয়রানীমূলক মিথ্যা চাঁদাবাজি মামলা দেয়ায় তার পরিবার আতংকে দিন কাটাচ্ছেন। সংবাদ সম্মেলনে শশুরের সাথে দু’পুত্র বধু লাইজু বেগম ও কাজল রেখা উপস্থিত ছিলেন।