দশমিনা ইউপি নির্বাচনে সহিংসতা ৮ দিন পর স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রার্থীসহ ৭৪ জনের নামে মামলা

0

 

ডেক্স রিপোর্টঃ দেশে প্রথম ধাপের ইউপি নির্বাচনে পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার দশমিনা ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন চলাকালিন সময় কেন্দ্রে হামলা, বাঁধা দেওয়ায় বাড়িঘরে হামলা, মারধর,মন্দিরের  প্রতিমা ভাংচুরের অভিযোগে স্বতন্ত্র প্রার্থী ইকবাল মাহমুদ লিটনসহ ৭৪ জনের নামে দশমিনা থানায় মামলা হয়েছে। আওয়ামী লীগ  মনোনীত প্রার্থীর চাচাতো ভাই শূভময় রায় বাদি হয়ে ঘটনার ৮দিন পর দশমিনা থানায় দ্রুত বিচার আইনে এই মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় অজ্ঞাত আরো ১৫০ থেকে ২০০ জনকে আসামি করা হয়।

মামলার বাদি অভিযোগে বলেন, আমার চাচাতো ভাই গৌতম রায় নৌকা প্রতীকে দশমিনা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পান। ১ নং আসামি ইকবাল মাহমুদ লিটন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করেন। নির্বাচনের দিন আমাদের বাড়ির নিকটবর্তী লক্ষীপুর কেন্দ্রে ভাইয়ের পক্ষে ভোট প্রার্থনা করলে আসামিরা ক্ষিপ্ত হয়ে নির্বাচনের দিন দলবল নিয়ে বে-আইনী ভাবে কেন্দ্রে প্রবেশ করে এবং ব্যালট পেপার ছিনতাই করে। আসামিরা ১,২ ও ৩ নং কেন্দ্রে স্বতন্ত্র প্রার্থী অনুকূলে ব্যালট ছিনতাই করে  বাক্সে ফেলে। এছাড়াও ৭,৮ ও ৯ নং কেন্দ্রে ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের চেষ্টা করলে আমরা বাঁধা দেই। এ আক্রোশে দুপুর পৌনে ২ টার দিকে আসামিরা দেশীয় অস্ত্র¿ নিয়ে আমাদের বাড়িঘরে হামলা, ভাংচুর ও মহিলাদের মারধর করে। এছাড়াও আসামিরা বাড়ির মন্দিরে রক্ষিত প্রতিমা ভাংচুর করে ও বাড়ির সামনে থাকা নয়টি মোটরসাইকেল ভাংচুর করে ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি করে। এতে তাদের মোট ২১ লাখ ৭৫ হাজার ৫০০ টাকা ক্ষতি সাধন হয় বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়।

দশমিনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মনিরুল ইসলাম মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, মামলাটি তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে ।

এদিকে এই মামলাটি সম্পূর্ন মিথ্যা ও ষড়যন্ত্র মূলক বলে দাবি করে স্বতন্ত্র প্রার্থী ইকবাল মাহমুদ  বলেন,  নির্বাচনে নিশ্চিত পরাজয় জেনে আমার বিরুদ্ধে নানা ষড়য়ন্ত্র করা হচ্ছে। এই মামলাটি ষড়যন্ত্রেরই একটি অংশ। বাড়িঘরে হামলার  অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এ হামলার সঙ্গে আমি কিংবা আমার কোন কর্মী-সমর্থক জড়িত নয়। ঘটনাটি নিন্দনীয়। সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে যারা এর সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ারও দাবি জানান তিনি।