দুমকিতে চাঞ্চল্যকর হাসিনা হত্যা মামলা: জামিনে আসা আসামীদের হুমকিতে নিরাপত্তাহীণ বাদীর পরিবার

0

দুমকি প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর দুমকিতে চাঞ্চল্যকর হাসিনা হত্যা মামলার অন্যতম আসামী দুধ্বর্ষ সন্ত্রাসী হানিফ ওরফে সুমন সিকদারসহ অন্যান্য আসামীরা উচ্চআদালতের জামিনে বেড়িয়ে বাদিসহ তাঁর পরিবারবর্গকে মামলা তুলে নিতে নানাভাবে চাঁপ ও হুমকি দিয়ে বেড়াচ্ছ। প্রকাশ্য দিবালোকে গৃহবধু হাসিনাকে কুপিয়ে খুন, লুঠপাট, মাদকব্যবসা, সন্ত্রাসী কার্যকলাপসহ একাধিক মামলার আসামী চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের প্রকাশ্যে বিচরণ ও অব্যাহত হুমকিতে পরিবারটি চরম নিরাপত্তাহীণতায় দিনাতিপাত করছে। শনিবার সকালে প্রেসক্লাব, দুমকিতে জনাকীর্ণ এক সংবাদ সম্মেলনে নিহত হাসিনার দেবর আবদুর রহিম এসব অভিযোগ তুলে দুধর্ষ খুনীদের জামিন বাতিল করত: দ্রুত হত্যা মামলার বিচার দাবি করেছেন।

লিখিত বক্তব্যে তিনি অভিযোগ করেন, জমিজমা সংক্রান্ত পারিবারিক বিরোধের জের ধরে উপজেলার পূর্ব কার্ত্তিকপাশা গ্রামের দুধর্ষ সন্ত্রাসী হানিফ সিকদার ওরফে সুমনের নেতৃত্বে ১৪/১৫জনের একটি সশস্ত্র বাহিনী ২০১৪সালের ৩ সেপ্টেম্বর প্রকাশ্য দিবালোকে গৃহবধু হাসিনাকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে হত্যা করে।এ ব্যাপারে পটুয়াখালী চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ১৪জনকে এজাহারভুক্ত আসামী করে একটি নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়। ( মামলা নং জিআর ৩৯০/১৪। সম্প্রতি উচ্চ আদালত থেকে জামিনে বেড়িয়ে এসে দুধ্বর্ষ খুনী সুমনের নেতৃত্বে একটি সন্ত্রাসী বাহিনী মামলাটি তুলে নিতে নানা ভাবে চাঁপ দিচ্ছে, অন্যথায় বাদিসহ পরিবারের সদস্যদের প্রাণে বিনাশ করার হুমকি দিয়ে বেড়াচ্ছে। সুমন বাহিনী এলাকায় এতটাই প্রভাবশালী যে, তাদের বিরুদ্ধে কেউ ‘টু’শব্দটিও করতে সাহস পায় না। এ কারনে বাদি ও তার পরিবারের সদস্যরা সার্বক্ষণিক আতংকে দিনাতিপাত করছে। লিখিত অভিযোগে আ: রহিম বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, খুন, অপহরন, চাঁদাবাজি, লুঠপাটসহ নানা অভিযোগে সদর থানা ও কোর্টে ৬/৭টি ফৌজদারি মামলার আসামী সত্বেও কিভাবে সুমন সিকদারের মতো একজন দুধর্ষ সন্ত্রাসী বিআরটিএর মতো একটি সরকারী প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করছে? পটুয়াখালী জেলা বিআরটিএ দপ্তরে চাকুরীর সুবাদে ঘুষ, দালালির অবৈধ অর্থের জোড় খাটিয়ে এসব অপকর্ম থেকে সহজেই পাড় পেয়ে যায়। অবিলম্বে সুমন সিকদারসহ মামলার অন্যান্য আসামীদের জামিন বাতিল করত: গ্রেফতার ও দ্রুত বিচারের দাবিতে বিচার বিভাগ, পুলিশ প্রশাসনসহ সরকারের উর্ধ্বতন মহলের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।