দুমকিতে ভূঁয়া আম- মোক্তারনামার মালিকানা দাবিতে একটি পরিবারকে ভিটি ছাড়া করার অপচেষ্টা

0

 

মজিবুর রহমান,দুমকি প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর দুমকিতে ভূয়া আম-মোক্তারনামায় কবলা দলিলের মালিকানা দাবিতে এক পরিবারকে ভিটি ছাড়া করার অপচেষ্টার অভিযোগ ওঠেছে। উপজেলার মুরাদিয়া ইউনিয়নের চরগরবদি গ্রামে এ দখলদাড়িত্বেও ঘটনাটি ঘটেছে।

শনিবার সকালে চরগরবদি গ্রামের মৃত বসন্ত কুমার শীলের ছেলে গৌরাঙ্গ চন্দ্র শীল অভিযোগ করে জানান, তাঁর পৈত্রিক ৩একর ৩৮শতাংশ সম্পত্তি জবর দখলের উদ্দেশ্যে স্বগোত্রীয় শ্যামল, পরিমল, নিখিল, দুলাল শীলদের নামে ভূয়া আম- মোক্তারনামার বলে কবলা দলিল সৃষ্টি করে এলাকায় একটি প্রভাশালী মহল দখলদাড়িত্ত্ব চালাচ্ছে। গৌরাঙ্গ চন্দ্র শীল জোয়ারগরবদি মৌজায় জেএল-২৯, এসএ খতিয়ান- ৩৭২/৩৭৩/১০৯৩ দাগ নং ২৬৩২/ ২৬৩৮/ ২৬৫৭/ ৩৩৫৪/ ২৫৫৭/ ২৫৫৩/ ৫৪ দাগে ৩একর ৩৮শতাংশ সম্পত্তির প্রকৃত ওয়ারিশ সূত্রে মালিকানায় ভোগদখলে রয়েছেন। প্রভাবশালী চক্রের অবৈধ দখলদাড়রা ওই সম্পত্তি থেকে তাঁকে বিতারিত করতে হামলা-মামলাসহ নানা ভাবে অত্যাচার-নির্যাতন চালিয়ে অতিষ্ঠ করে তুলেছেন। তাদের দখল-দাড়িত্ব ঠেকাতে তিনি আদালতে পর পর দু’টি মামলা দায়ের করেছেন। কিন্তু স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তি নেছার ফকিরগংরা একদিকে লাঠিয়াল বাহিনী দিয়ে সংখ্যালঘু পরিবারের ঘরবাড়িতে হামলা, খুন-জখমের ভয়ভীতি দেখিয়ে মামলা তুলে নিতে বলে, অপর দিকে বিচারাধীণ দু’টি মামলা দেং মোং নং ৫৪৮/২০১৫ ও এমপি-৬১/২০১৬ এর তদন্ত রিপোর্ট পক্ষে নিতে টাকার বিনিময়ে প্রশাসন ও তদন্তকারী কর্মকর্তা ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তাকে (তহশিলদার)ম্যানেজ করে নেয়। তদন্তকারী কর্মকর্তা ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তাকে (তহশিলদার) মো: আবদুল মালেক এর পক্ষে মিসেস শাহনাজ পারভীন গত বৃহস্পতিবার দুপুর ২টায় সরেজমিন তদন্তে গিয়ে বাদিপক্ষের অজ্ঞাতে শুধুমাত্র অবৈধ দখলদারদের কয়েকজনের সাক্ষ্য গ্রহণ করে গেছেন। এমন তদন্ত কার্যক্রমে পক্ষপাতিত্বের আশংকা রয়েছে। এতে মামলার রায় প্রভাবিত করে বিবাদী পক্ষ তাঁকে সহায়-সম্পত্তি থেকে চিরতরে উৎখাতের পায়তারা করছে। মামলার তদন্তকর্মকর্তাকে এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ম্যানেজ নয়, জরুরী কাজে ব্যস্ত থাকায় সহকর্মীকে ঘটনাস্থলে গিয়ে উল্লেখিত জমির বর্তমান অবস্থা, প্রকৃত মালিক কে এবং কার দখলে আছে তা জানতে সহকর্মী শাহনাজকে দায়িত্ব দিয়ে তথ্য সংগ্রহ করেছি। এখানে ম্যানেজের কোন বিষয় নেই।

এ অবস্থায় সংখালঘু পরিবারটি পৈত্রিক সহায় সম্পত্তি নিয়ে চরম শংকাগ্রস্থ এবং জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় দিনাতিপাত করছে। তারা অবৈধ দখল মুক্ত করে ভিটি বাড়ী রক্ষায় স্থানীয় প্রশাসনসহ উর্ধ্বতন প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।