নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্বেও বাউফলের তেঁতুলিয়া নদীতে অবাধে চলছে জাটকা নিধন খোলা বাজার ও ফেরি করে বিক্রি হচ্ছে জাটকা, নির্বিকার প্রশাসন

0

 

12বিশেষ প্রতিনিধি : সরকারি বিধিনিষেধ অমান্য করে বাউফলের তেঁতুলিয়া নদীতে অবাধে নিধন করা হচ্ছে ১০ ইঞ্চির চেয়ে ছোট জাটকা ইলিশ। প্রতিদিনই শত শত মণ জাটকা আরোহন করে উপজেলার বিভিন্ন হাট বাজারে বিক্রি করা হচ্ছে এসব জাটকা ইলিশ। এমনকি ফেরি করেও বিক্রি করা হচ্ছে জাটকা। প্রশাসন রয়েছে নিরব দর্শকের ভূমিকায়।

সরেজমিনে দেখা গেছে, উপজেলার কালাইয়া, বাউফল, নূরাইনপুর, ধুলিয়া, কালিশুরী, কনকদিয়া, বগা, নওমালাসহ ছোট-বড় প্রায় ৪০টি হাট বাজারে প্রতিদিনই শত শত মণ জাটকা ইলিশ অবাধে বিক্রি করা হচ্ছে। প্রশাসনের তরফ থেকে মাঝেমধ্যে লোক দেখানো দু’একটি অভিযান চালালেও নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেননা জাটকা নিধন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছিুক একটি সূত্র জানায়, তেঁতুলিয়া নদীতে প্রায় অর্ধ সহা¯্রাধিক জেলে জাটকা নিধনের কাজে লিপ্ত রয়েছেন। ওই সকল জেলেরা সরকারি সহায়তাও ভোগ করছেন। সরকারি বিধিনিষেধ অনুযায়ি ৩০ জুন পর্যন্ত ১০ ইঞ্চির ছোট কোন ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কিন্তু বাস্তবে দেখা যাচ্ছে, ৪/৫ ইঞ্চি কিংবা তারও ছোট সাইজের শত শত মণ জাটকা প্রতিদিনই ধরে অবাধে বাজারে বিক্রি করা হচ্ছে। বাউফলে দীর্ঘদিন পর্যন্ত মৎস্য কর্মকর্তা নেই। যার ফলে অসাধু জেলেরা উৎসাহ-উদ্দীপনা নিয়েই নির্ভিঘেœ জাটকা নিধন করছে। একটি সূত্র জানিয়েছেন, ধুলিয়া ইউনিয়নের ইউপি সদস্য শাহজাহান গাজী জাটকা ধরা সিন্ডিকেটের নেতা। তিনি ভোলা ও বাউফল এলাকার কিছু জেলেদের দাদন দিয়ে এনে পাইর জাল ও কারেন্ট জাল দিয়ে জাটকাসহ অন্যান্য মাছ ধরাচ্ছেন। তার মাধ্যমেই জেলেরা প্রশাসনকে ম্যানেজ করছেন। এ কারণে অভিযানের সময় জাল আটক করা হলেও অর্থের বিনিময়ে সে জাল ছেড়ে দেয়া হচ্ছে বলে জণশ্রুতি রয়েছে। তবে শাহজাহান গাজী তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। জাটকা রক্ষায় কোস্টগার্ড ও কালাইয়া নৌ পুলিশ ফাড়ির সদস্যরা কাজ করলেও ৪০ কিলোমিটারের দীর্ঘ তেঁতুলিয়ায় ইলিশ রক্ষা অভিযানে তাদের পক্ষে দু:সাধ্য হয়ে পরেছে। তেঁতুলিয়া নদীতে টহলরত কোস্ট গার্ডের জাহাজের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আলী আকবর জানান, ইলিশ রক্ষায় তারা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তবে বিশাল এই এলাকায় আরো জনবল ও নৌ-সরঞ্জম দরকার। এদিকে গত সোমবার রাতে কোস্ট গার্ড সদস্যরা তেঁতুলিয়া নদীতে টহলের সময় ৫ হাজার মিটার কারেন্ট জাল ও ২৫ মণ জাটকা ইলিশ আটক করে কালাইয়া লঞ্চঘাট এলাকায় এসে দুস্থদের মাঝে মাছগুলো বিলিয়ে দিয়েছেন এবং জাল পুড়িয়ে ফেলেছেন।