পটুয়াখালীতে অস্ত্রসহ দুই ডাকাত গ্রেফতার স্থানীয়দের দাবি সাজানো নাটক

2

 

 

হৃদয় আশিষ ঃ পটুয়াখালী সদর উপজেলার আউলিয়াপুর এলাকায় ডাকাতির প্রস্তুতিরত অবস্থায় দুই ডাকাত কে হাতে নাতে আটক করেছে পুলিশ। এ সময় তাদের কাছ থেকে একটি দেশীয় বন্দুক, দুই রাউন্ড গুলি, চারটি রামদা, একটি ছোড়া ও একটি কুড়াল উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল বুধবার রাত এক টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

 

গতকাল বেলা সাড়ে ১২টায় এক প্রেস ব্রিফিং এ পুলিশ সাংবাদিকদের জানায়, ৭/৮ জন ডাকাতের একটি সংঘবদ্ধ দল ডাকাতির প্রস্তুতি নিতে পটুয়াখালীর আউলিয়াপুরে সাহাবুদ্দিনের একটি নির্মানাধিন বাড়িতে অবস্থান করছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে রাত ১ টার সময় অভিজান চালায়। ডাকাতরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে, এলাকাবাসীর সহয়াতায় পুলিশ দুই জনকে অগ্নেয়া¯্র সহ গ্রেফতার করলেও বাকি ডাকতরা পালিয়ে যায়। তবে স্থানীয় উত্তেজিত জনতা আটকৃত দুই ডাকাতদের মারধর করতে শুরু করলে পুলিশ তাদের রক্ষা করতে গিয়ে পুলিশের এস আই হুমায়ন,এস আই প্রবাস ও কনেস্টেবল মিজান আহত হয়। আহত পুলিশ সদস্যদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

 

আটককৃত ডাকাতরা হচ্ছেন পটুয়াখালী শহরের কলাতালা এলাকার নুরুজ্জামান সরদারের পুত্র সজীব সরদার (২৪)ও হেতালিয়া এলাকার সেকান্দারের পুত্র নুরুজ্জামান (২৬)। পুলিশ আরও জানায়, তারা ডাকাতদের জিজ্ঞাসাবাদ করলে, সজীব গত সন্ধ্যায় তার সহযোগী ইমন (২০), জুয়েল (২০) ও হাসান (২০) দেরকে নিয়ে টেংগাতলা নামক স্থানে রাস্তার পাশে একটি মেয়েকে ধর্ষন করে ডাকতির উদ্দ্যেশ্যে আউলিয়াপুরের আস্তানায় গিয়েছে বলে স্বীকারোক্তি দিয়েছে। ধৃতদের বিরুদ্ধে ডাকাতি ও অস্ত্র মামলা এবং পৃথক একটি ধর্ষনের মামলা হবে।

তবে এলাকাবাসী জানায়, ডাকাত ধরার ঘটনাটি একটি সাজানো নাটক। পুলিশ আসল অপরাধীদের গ্রেপ্তারে ব্যার্থ হয়ে স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতার মদদে ধর্ষন মামলার আসামীদের দিয়ে এ নাটকটি সাজিয়েছেন। এলাকাবাসী প্রকৃত অপরাধীদের গ্রেপ্তারের দাবী জানান।

 

 

উল্লেখ্য গত ২১সেপ্টেম্বর ডাকাতের গুলিতে ওই এলাকায় শাহজাহান নামের এক ব্যক্তি নিহত হন। এ ছাড়াও গত কয়েক মাসে ওই এলাকায় বেশ কয়েকটি ডাকাতির ঘটনা ঘটে। এর পর থেকে এলাকাবসী নিজেরাই রাতে পাহারা দিয়ে আসছিল।##