পটুয়াখালীতে চাপাতি সহ  জঙ্গী  সন্দেহে এক  গ্রেফতার 

5

স্টাফ রিপোর্টারঃ পটুয়াখালী সদর থানা পুলিশ বৃহস্পতিবার রাতে শহরের জোনাকি হোটেল থেকে  ইমরান খান (৪০) কে গ্রেফতার করেছে । এ সময় তার ব্রিফকেস থেকে একটি চাপাতি ও একটি বড় ছুরি উদ্বার করেছে।পুলিশ সন্দেহ করছে  সে  সঙ্গবদ্ব কোন জঙ্গী সংগঠনের সদস্য কিনা ।

পুলিশ সুত্রে জানা গেছে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে জোনাকি বোডিং এর ৪৩ নম্বর রুমে এক জঙ্গী সদস্য অবস্থান করছে । এমন সংবাদের ভিত্তিতে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার নেতৃত্বে পুলিশের একটি বিশেষ দল ঐ রুমে অভিযান কালে ইমরান খান কে গ্রেফতার করে । পরে তার রুম তল্লাশী কালে তার ব্যবহৃত ব্রিফকেসের ভিতর থেকে ১টি চাপাতি ও গরু জবাই করা ১টি বৃহদাকার চুরি উদ্বার করে । গ্রেফতারকৃত ইমরান খান গলাচিপা উপজেলাধীন চিকনিকান্দি ইউনিয়নের কোটখালী গ্রামের মুছা খানের পুত্র । তার চাচা মাওলানা আশরাফ আলী পটুয়াখালীর শীর্ষ রাজাকার ।

ইমরান খান জানান সে ১৯৯৭  সনে সাভার ইসলামিয়া মাদ্রাসা থেকে ফাজিল পাশ করেছে ।  সে একজন ব্যবসায়ী বলে দাবী করেন । সে কোন জঙ্গী নয় বলে দাবী করেন । তিনি জানান সে ষড়যন্ত্রের ¯ী^কার । সে ২০০৯ সনে একই গ্রামের ফারিয়া জাহান কে বিবাহ করে । বিবাহিত জীবনে স্ত্রীর সাথে সম্পর্ক ভাল যাচ্ছিলনা । চলতি বছর ফেব্রয়ারী মাসে তার স্ত্রী তাকে ত্যাগ করে চলে যায় । এ নিয়ে মধ্যস্থ্যতাকারী তার গ্রামের জনৈক আঃ রহিম বৃহস্পতিবার রাতে তার রুমে এসে একটি কাগজে মুরিয়ে ঐ চাপাতি ও ছুরি তার রুমে রেখে আসি বলে চলে যায় । কিন্তু দীর্ঘ সময় সে না আসায় তাকে ফোন করলে আসি বলে আর না এসে তার মোবাইল বন্ধ রাখে । এমতাবস্থায় রাতে পুলিশ এসে তাকে গ্রেফতার করে ।

এ প্রসংঙ্গে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা  কে এম তারিকুল ইসলাম জানান গ্রেফতারকৃত ইমরান খান নিঃসন্দেহে একজন জঙ্গী । হয়তবা কোন নাশকতা পরিকল্পনা নিয়ে ঐ বোডিং এ অবস্থান করছিল । গ্রেফতারের পরে তার দেয়া বক্তব্য যাচাই বাছাই করা হচ্ছে ।