পটুয়াখালীতে পানিতে ডুবে ও সড়ক দুর্ঘটনায় দুই শিশু নিহত

0

হৃদয় আশিষ, পটুয়াখালী ঃ পটুয়াখালী সদর উপজেলার ডিবুয়াপুর ও পশ্চিম আউলিয়াপুর এলাকায় পানিতে ডুবে একজন ও সড়ক দুর্ঘটনায় একজন নিহত হয়েছে। নিহতরা হলেন ডিবুয়াপুরের স্বপন এর কন্যা মারিয়া (২) ও আমতলীর চুনাখালীর ধলাই মোল্লার মেয়ে রাবেয়া (০৮)।

 

প্রত্যক্ষদর্শী, পুলিশ ও পরিবারিক সুত্র জানায় সদর উপজেলার ডিবুয়াপুর এলাকার স্বপন এর মেয়ে মারিয়া বাড়ির সবার অগোচরে খেলতে গিয়ে পানিতে পড়ে যায়। খোজাখুজির এক পর্যায়ে পাশবর্তী পুকুর থেকে তাঁকে উদ্ধার করে পটুয়াখালী হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে ডাক্তার তাঁকে মৃত ঘোষনা করেন।

 

অপর দিকে বরগুনার আমতলী উপজেলার চুনাখালী গ্রাম থেকে একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে একটি অটো রিক্সা যোগে পটুয়াখালী আসছিলেন ধলাই মোল্লার স্ত্রী, কন্যাসহ পরিবারের সদস্যরা। অটোরিক্সাটি দ্রুতগতিতে চালানোর কারনে পটুয়াখালী সদর উপজেলার পশ্চিম আউলিয়াপুর এলাকায় আসলে চালক গতি নিয়ন্ত্রনে আনতে না পারায় রাবেয়া রিক্সা থেকে পড়ে যায় এবং রিক্সাটির পেছনের চাকা তার গলার চাপা দিয়ে উপর দিয়ে চলে যায়। ঘটনা স্থলে প্রচুর রক্তক্ষরন শুরু হয় রাবেয়ার। মুমুর্ষু অবস্থায় স্থানীয়দের সহয়তায় তাকে ঐ অটোতে করে পটুয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে ডাক্তার তাকেও মৃত ঘোষনা করেন।

 

সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর ঘটনায় পুলিশ প্রত্যক্ষদর্শী ফজলু সিকদার নামের একজনকে আটক করেছে। ফজলু সিকদার জানান,তিনি মেয়েটিকে আহত অবস্থায় দেখে মেয়ের মায়ের অনুরোধে তারা যে অটোর যাত্রী ছিলেন সেই অটোতে করেই পটুয়াখালী হাসপাতালে আসেন। তারা হাসপাতালে নামার পর অটোচালক পালিয়ে যায়। এখানে তার কি দোষ তা বুঝতে পারছেন না তিনি।

 

এ বিষয়ে পুলিশের সেকেন্ড আফিসার কবির জানান, নিহত রাবেয়ার মা অভিযোগ করেছেন যে,ফজলু চালককে পালিয়ে যেতে সহয়তা করেছে তাই পুলিশ তাঁকে আটক করেছে। পরে ঘাতকের পরিচয় জানতে পেরে পুলিশ আটককৃত ফজলুকে ছেড়ে দেয়। ঘাতক ড্রাইভারের নাম খলিল প্যাদা। খলিল মরিচবুনিয়ার ছালাম প্যাদার ছেলে।##