পটুয়াখালীতে ভুয়া এনজিও কর্মী আটক

4

ডেস্ক রিপোর্ট : পটুয়াখালী শহরের লঞ্চঘাট এলাকা থেকে বেল্লাল হোসেন নামে এক ভুয়া এনজিও কর্মীকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে স্থানীয় লোকজন। ওই যুবক বাংলাদেশ দারিদ্র দুরীকরন সংস্থা, ঢাকা’র নামে লোন দেয়ার নাম করে সঞ্চয় রাখার কথা বলে সহজ-সরল মানুষদের কাছ থেকে টাকা তুলে আত্মগোপনের চেষ্টাকালে তাকে বৃহস্পতিবার দুপুরে আটক করা হয়। আটক বেলালের বাড়ি পটুয়াখালী সদর উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নের পশরবুনিয়া বলে জানান।

প্রতারিত পটুয়াখালী সদর উপজেলার মাদারবুনিয়া ইউনিয়নের হাজীখালী গ্রামের মো. চান মিয়া ফকির জানান, এক সপ্তাহ আগে বেলাল হোসেন তার বাড়ি যান। নিজেকে এনজিও কর্মী দাবি করে অটোরিক্সা কেনার জন্য দেড়লাখ টাকা লোন দেয়ার প্রলোভন দেখান তাকে। জামানাত হিসেবে ১০ হাজার টাকা দাবি করেন। গতবুধবার চান মিয়া ফকিরের কাছ থেকে বেলাল প্রথম কিস্তিতে ৭হাজার টাকা নেন। আজ সকালে বাকি ৩ হাজার টাকার জন্য ফোন দিলে চানমিয়া টাকা নিয়ে ডিসি কোর্ট এলাকায় আসেন এবং বেলালের হাতে দেন। কয়েক দিনের মধ্যেই তার লোন পাশ হবে বলে আশ্বাস দিয়ে সটকে পড়ে। চান মিয়া পরে ওই নাম্বারে ফোন দিয়ে বেলালের নাম্বার বন্ধ পেয়ে বিষয়টি স্বজন ও এলাকাবাসীকে জানান। পরে সবাই মিলে খোঁজাখুঁজির পর লঞ্চঘাট তালুকদার ক্লথের সামনে থেকে বেলালকে আটক করা হয়।

সাংবাদিকদের কাছে বেলাল জানান, ঢাকার ৬২/৬৩, মতিঝিল আমিন কোর্ট ঠিকানার বাংলাদেশ দারিদ্র দুরীকরন সংস্থার কর্মকর্তারা তাকে চাকুরি দেয়ার কথা বলে ৫জন গ্রাহক ঠিক করতে বলে। তাদের হয়ে কাজ করছিল সে। জিয়াউর রহমান নামে ঢাকা অফিসের একজন তার সাথে ছিল। তবে জিয়াউর রহমানের ০১৬২৫-১৬৭৬৬৫ নাম্বারটি বন্ধ পাওয়ার এ ব্যাপারে তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

স্থানীয় উন্নয়ন কর্মী দক্ষিন বঙ্গ সমাজ উন্নয়ন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক আয়েশা আক্তার মুক্তা জানান, হাজিখালীসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে আরো অনেকের কাছ থেকে প্রতারনার মাধ্যমে এমনকরে টাকা নিয়ে যাবার খবর আসছে। আর কেউ যাতে এমন প্রতারনার শিকার  না হন সেদিকে প্রশাসনের দৃস্টি দেয়া দরকার।

পটুয়াখালী সদর থানার এস আই প্রভাস জানান, সহজ সরল লোকেদের প্রতারনা করার দায়ে সন্দেহভাজন হিসেবে তাকে ধরে আনা হয়েছে তবে জিজ্ঞাসাবাদে সে কোন সদুত্তর না দিতে পেরে তার অপরাধ স্বীকার করেছে। মামলা প্রকৃয়াধীন রয়েছে।#