পটুয়াখালীতে যথাযোগ্য মর্যাদায় স¦াধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত

11

স্টাফ রিপোর্টারঃ পটুয়াখালী জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে মহান স¦াধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে ২৬মার্চ রবিবার প্রত্যূষে সার্কিট হাউস চত্বর ৩১ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে দিবসের শুভ সূচনা হয়।  সূর্যোদয়ের সাথেসাথে সকল সরকারি, আধা সরকারি, স¦ায়ত্তশাসিত এবং বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন সকাল ৬টায় স্মৃতিসৌধে ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিফলকে জেলা প্রশাসক একেএম শামিমুল হক ছিদ্দিকীর নেতৃত্বে সাবেক ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব অ্যাড: মো: শাহজাহান মিয়া, জেলা পরিষদ প্রশাসক খান মোশারফ হোসেন পুলিশ সুপার সৈয়দ মোসফিকুর রহমান,গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী জেরাল্ড অলিভার গুডা, সিভিল সার্জন ডা: মো: সেলিম মিয়া,  সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব অ্যাড: সুলতান আহম্মেদ মিয়া, , সদর উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাড.তারিকুজ্জামান মনি, সহ আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ, জাসদ, গণফোরাম, কমিউনিস্ট পার্টি,  পটুয়াখালী প্রেসক্লাব, জেলা আইনজীবী সমিতি, পটুয়াখালী সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, স্কুল, কলেজ প্রতিষ্ঠানের প্রধানগণ শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিসৌধ পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধানিবেদন করেন। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সকাল ৮টায় জেলা প্রশাসনের আয়োজনে এ্যাডভোকেট আবুল কাশেম স্টেডিয়াম  মাঠে পুলিশ, কারারক্ষী, আনসার ও ভিডিপি, বিএনসিসি, রোভার স্কাউট, বয়স্কাউট, গার্লস গাইড এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক এ কে এম শামিমুল হক ছিদ্দিকী। । সকাল সাড়ে ১০টায়  জেলা সদরের গণকবর জিয়ারত করা হয় । বেলা ১১টা থেকে   জেলা সদরের উল্লেখযোগ্য স্থানে  দেশাত্ববোধক ভ্রাম্যমাণ সংগীত পরিবেশন করা হয়।বেলা সাড়ে ১১টায় শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে  বেলা ১১টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক একেএম শামিমুল হক ছিদ্দিকী। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোকতার হোসেন এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা খান মোশারফ হোসেন, পুলিশ সুপার সৈয়দ মোসফিকুর রহমান, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি এ্যাড. নুরুল হক তালুকদার, জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক কাজী আলমগীর, জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও সাবেক সদর উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. মোঃ সুলতান আহমেদ মৃধা, সাবেক সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা সরদার আবদুর রশীদ, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এম.এ. হালিম, জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা আবদুল মান্নান সদর উপজেলা মুক্তযোদ্ধা কমান্ডার এ আমিনুল হোসেন বাবুল, চেপুটি কমান্ডার মোঃ সেরাজুল ইসলাম,আবুল কাশেম মুন্সী প্রমুখ।পরে  জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৩জন শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের মাঝে ৩টিসেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়।  বাদ যোহর ও সুবিধাজনক সময়ে সকল মসজিদ, মন্দির, গীর্জা, প্যাগোডা  এবং অন্যান্য উপাসনালয় জাতির শান্তি, সমৃদ্ধি ও অগ্রগতি কামনা করে মসজিদে বিশেষ  মোনাজাত এবং মন্দির, গীর্জা, প্যাগোডা ও অন্যান্য উপাসনালয়ে প্রার্থনা করা হয় । দুপুরে হাসপাতাল,  জেলখানা, এতিমখানা, সরকারী শিশু পরিবার, বৃদ্ধাশ্রম উন্নত মানের  খাবার পরিবেশন করা হয়। বিকাল ৪টায় মহিলা ক্রীড়া সংস্থা চত্ত্বরে মহিলাদের অংশগ্রহণে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক আলোচনা সভা ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ।বিকেল ৪টায় এ্যাডভোকেট আবুল কাশেম স্টেডিয়াম মাঠ হা-ডু-ডু প্রতিযোগিতা। অংশ গ্রহণে জেলা প্রশাসন একাদেশ বনাম জেলা পরিষদ একাদশ। একই মাঠে   বয়স্কদের হাঁটা প্রতিযোগিতা। অনুষ্ঠিত হয়।বিকাল সাড়ে ৪টায় এ্যাডভোকেট আবুল কাশেম স্টেডিয়াম মাঠে  জেলা প্রশাসন একাদশ বনাম পৌরসভা একাদশ,এবং লালদল বনাম সবুজদল প্রীতি ফুটবল প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। সন্ধ্যা পৌনে ৭টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে সুখী, সমৃদ্ধ, ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গঠনের লক্ষ্যে ডিজিটাল প্রযুক্তির সার্বজনীন ব্যবহার শীর্ষক স্থানীয় সরকার শাখার উপ-পরিচালক আবুল কালাম আজাদ এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক এ কে শামিমুল হক ছিদ্দিকী। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান খান মোশারফ হোসেন, পুলিশ সুপার সৈয়দ মোসফিকুর রহমান, জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক কাজী আলমগীর, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এম.এ. হালিম। এ ছাড়া সভায় অন্যান্যদের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা অতুল চন্দ্র দাস,জেলা কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি আব্দুল মোতালেব মোল্লা, জেলা জাসদের সাধারন সম্পাদক স.ম.দেলওয়ার হোসেন দিলিপ,মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান খান প্রমুখ। সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় শহীদ আলাউদ্দিন শিশুপার্কে মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক ভ্রাম্যমান চলচ্চিত্র প্রদর্শনী। রাত ৮টায়  জেলা শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে জেলা শিল্পকলা একাডেমী শিল্পীবৃন্দ, দখিনা খেলাঘর , পটুয়া খেলাঘর এবঙ শিশু একাডেমীর শিল্পীদের পরিবেশন করা হয় এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এছাড়া দিবসটি উপলক্ষে গুরুত্বপূর্ণ সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাাসিত এবং বেসরকারি ভবন/স্থাপনাসমূহে আলোকসজ্জাকরা হয়।