পটুয়াখালী লোকাল ইয়ুথ পার্লামেন্টের প্রথম অধিবেশন

1

ডেক্স রির্পোটঃ “সংসদীয় পদ্ধতিতে গনতন্ত্র চর্চার মাধ্যমে যুব সমাজকে স্বেচ্ছাসেবী কাজে অংশগ্রহনে আগ্রহী করে তোলা‘র লক্ষে বুধবার পটুয়াখালী প্রেসক্লাবের ড.আতাহার উদ্দিন মিলনায়তনে শুকতারা স্টুডেন্ট ফোরামের আয়োজনে এবং ১টি  বেসরকারী উন্নয়ন সংগঠনের সহযোগীতায় লোকাল ইয়ুথ পার্লামেন্টের প্রথম অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়।

প্রথম বারের মত পটুয়াখালীতে প্রতিটি ইউনিয়ন, উপজেলা সদর, পৌরসভা থেকে ১জন করে প্রতিনিধি নিয়ে নারী নির্যাতন ও শিশু বিবাহ প্রতিরোধে ১০০ যুবদের অংশগ্রহনে  লোকাল ইয়ুথ পার্লামেন্টের প্রথম অধিবেশন করা হয়।যুব ছায়া সংসদে স্পীকার আগমনের সাথে জাতীয় সংঙ্গীত পরিবেশন করে ভাষা আন্দোলন ও মহান মুুক্তিযোদ্ধে এবং ১৫ আগস্টের সকল শহীদের আত্মার মাগফিরাত কামনায় শোক প্রস্তাব আনা হয়।অধিবেশনে সকল প্রতিনিধিরা তাদের নারী নির্যাতন ও শিশু বিবাহ বন্ধে শপথ গ্রহন করেন। এছাড়াও নিজ নিজ এলাকার বিভিন্ন সম্যসা উপস্থাপন করে তার প্রতিরোধ গড়ে তুলতে কর্মপরিকল্পনা গ্রহন করে কার্যক্রম বাস্তবায়নের অগ্রগতির রির্পোট প্রতিমাসে  লোকাল ইয়ুথ পার্লামেন্ট অধিবেশনে প্রদান করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।সংসদীয় কার্যসূচি অনুযায়ী যুব সংসদ সদস্য মো: আবুল বাশার তারকা চিহ্নিত প্রশ্ন ১০১ উত্থাপন করেন। প্রশ্নের জবাবে অনুষ্ঠানের আইনমন্ত্রী আগামী দিনে যুব ছায়া সংসদ পরিচালনার জন্য কোন পদ্ধতি বা ধারা এবং একটি খসড়া গঠনতন্ত্র প্রনয়নের জন্য উপস্থিত সদস্যবৃন্দের মতামত নেয়ার জন্য মাননীয় স্পীকারকে অনুরোধ করেন। উপস্থাপিত বিষয়ের উপর সদস্যদের মতামত নেয়ার পর হ্যা/না ভোটের মাধ্যমে জাতীয় সংসদের অনুকূলে পরিচালনা পদ্ধতি ও একটি খসড়া গঠনতন্ত্র অনুমোদন প্রস্তাব সর্বসম্মতি ক্রমে গৃহিত হয়।

যুব ছায়া সংসদে স্পিকার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন শুকতারা স্টুডেন্ট ফোরামের কো-অর্ডিনেটর মো: জহিরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রী হিসেবে পটুয়াখালী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের উম্মে নাইমা করিম আখি, বিরোধী দলীয়নেতা হিসেবে পবিপ্রবির উম্মে তাসনিম, এবং আইন মন্ত্রী হিসেবে পটুয়াখালী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের  মো: রিয়াজুল ইসলাম।