প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই দেশের উন্নয়নে নিরলস ভাবে কাজ করছেন -স্থানীয় সরকার সচিব আবদুল মালেক

2

এম. রহমান ,দুমকি ঃ স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব আবদুল মালেক বলেছেন, বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মন্ত্র- উন্নয়নের তন্ত্র। ভিশন-২০২১ এ মধ্যম আয়ের দেশ ও ২০৪১ সালে উন্নত রাষ্ট্র গঠণে সরকারের নানা উন্নয়ন কর্মকান্ডের উদ্বৃতি দিয়ে তিনি বলেন, বিএনপি আন্দোলনের নামে জালাও-পোড়াও, মানুষ হত্যা ছাড়া দৃশ্যত: কোন উন্নয়ন করেনি। আর শেখ হাসিনা রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহন করে কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য চিকিৎসা, শিল্প-বাণিজ্যে অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধন করেছেন। দেশে এখন দারিদ্রতা তেমন একটা নেই-সাধারণ মানুষের জীবন যাত্রার মানোন্নয়ন ঘটেছে। পায়রা বন্দর, তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র, সেনানিবাস, পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ, বীজভান্ডার প্রতিষ্ঠাসহ দক্ষিনাঞ্চলের বিভিন্ন উন্নয়নের উদাহরণ টেনে বলেন, কেবলমাত্র শেখ হাসিনাই দেশের উন্নয়নে নিরলস ভাবে কাজ করছেন।

গতকাল রবিবার সকালে পটুয়াখালীর দুমকি উপজেলা পরিষদ আয়োজিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো: শাহজাহান সিকাদারের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো: শামসুউদ্দীন, পটুয়াখালীর জেলা প্রশাসক অমিতাভ সরকার, পুলিশ সুপার সৈয়দ মো: মোসফিকুর রহমান, জেলা পরিষদ প্রশাসক ও জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক খান মোশাররফ হোসেন, জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা বৃন্দ, বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যানবৃন্দ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানগণসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার প্রতিনিধিবর্গ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

 

সকাল সাড়ে ৮টায় গ্রামের বাড়ি বাউফল থেকে সড়ক পথে বগা ফেরীঘাট পার হয়ে তিনি দুমকি উপজেলা পরিষদ চত্তরে পৌছলে রাস্তার দু’পার্শ্বে সাড়িবদ্ধ ভাবে দাড়িয়ে থাকা জনতা ফুল ছিটিয়ে তাঁকে অভ্যর্থণা জানান। উপজেলা চেয়ারম্যান মো: শাহজাহান সিকদারের নেতৃত্বে পরিষদের মূখ্য কর্মকর্তা মো: হাফিজুর রহমান, ভাইস-চেয়ারম্যান এড. হুমায়ুন কবির বাদশা, মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান মিসেস নাসিমা বেগম. উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা মো: আলতাফ হোসেন তালুকদার প্রধান অতিথি এলজিইডি সচিবকে ফুলেল শুভেচ্ছায় বরণ করে অডিটরিয়ামের সভাস্থলে নিয়ে যান।

মতবিনিময় অনুষ্ঠান শেষে তিনি স্থানীয় জনতা কলেজ হয়ে জেলা শহর পটুয়াখালীর পূর্ব-নির্ধারিত ২/৩টি অনুষ্ঠানে যোগদানের উদ্দেশ্যে দুমকি ত্যাগ করেন। উল্লেখ্য, সচিবের আগমন উপলক্ষে পটুয়াখালীর প্রবেশদ্বার হিসেবে পরিচিত লেবুখালী ফেরীঘাট, বিশ্ববিদ্যালয় স্কায়ার, উপজেলা পরিষদ চত্তর, দুমকি বাউফল সড়কের নসিব সিনেমা চত্তরে প্রেসক্লাব, থানা ব্রিজ ও চরগরবদি ফেরীঘাটে নির্মাণ করা হয় সুবিশাল তোড়ণ। উপজেলা পরিষদ চত্তরসহ সড়কের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে নানা ধরণের ব্যানার ফেস্টুন দিয়ে বর্ণিল সাঁজে সুসজ্জিত করা হয়।