ফলোআপ বাউফলে পরীক্ষা কেন্দ্র সচিবকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

2

 

অতুল পাল, বিশেষ প্রতিনিধি : বাউফলের কালাইয়া কেন্দ্রে ভিন্ন সিলেবাসের প্রশ্নে তিন পরীক্ষার্থীর পরীক্ষা নেয়ার খবর পটুয়াখালী প্রতিদিনসহ বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশ হওয়ার প্রেক্ষিতে কেন্দ্র সচিবকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে বরিশাল শিক্ষা বোর্ড। আগামী ৭ কর্মদিবসের মধ্যে বরিশাল শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের কাছে ঘটনার জবাব দাখিলের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। গত ৪ ফেব্রুয়ারী বৃহষ্পতিবার বরিশাল শিক্ষা বোর্ডের ওয়েব সাইটের নোটিশ বোর্ডে স্মারক নং বশিবো/পনি/এসএসসি/২০১৬/৯৬৮ এর মাধ্যমে ওই কারণ দর্শানো নোটিশ প্রকাশ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, কালাইয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও আ স ম ফিরোজ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ২০১৩-২০১৪ শিক্ষা বর্ষের তিন পরীক্ষার্থী ২০১৫ সালে অনুষ্ঠিত এসএসসি পরীক্ষায় কালাইয়া কেন্দ্র থেকে অংশ নিয়ে বাংলা বিষয়ে অকৃতকার্য হয়। এ বছর তারা ক্যাজুয়াল পরীক্ষার্থী হিসেবে পরীক্ষায় অংশ নিলে তাদের ২০১৪ সালের সিলেবাস অনুযায়ী ছাপানো প্রশ্নে পরীক্ষা নেয়া হয়। পরীক্ষার্থীরা তাৎক্ষণিক বিষয়টি সহকারি সচিব কালাইয়া হায়াতুন্নেচ্ছা বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. হারুনুর রশিদ ও কক্ষ পরিদর্শক কহিনুর বেগমকে জানালে ওই প্রশ্নেই পরীক্ষা দিতে হবে বলে তারা পরীক্ষার্থীদের জানিয়ে দেন। পরীক্ষার পর ঘটনাটি সংবাদকর্মীদেরকে অবহিত করলে বিষয়টির ওপর পটুয়াখালী প্রতিদিনসহ বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়। এছাড়া ওই পরীক্ষার্থীরা একখানা আবেদন বরিশাল শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান বরাবরে পাঠায়। পত্রিকায় প্রকাশিত খবরটি চেয়ারম্যানের দৃষ্টিতে এলে তিনি পরীক্ষা নিয়ন্ত্রককে সংশ্লিষ্ট কেন্দ্র কেন বাতিল ও কেন্দ্র সচিবের বিরুদ্ধে বিধিমোতাবেক কেন ব্যবস্থা কেন নেয়া হবে না উল্লেখ করে সাত দিনের মধ্যে কারণ দর্শনোর নির্দেশ দেন। ওই কারণ দর্শানোর অনুলিপি বাউফল উপজেলা নির্বাহী অফিসারকেও দেয়া হয়েছে। এব্যপারে কালাইয়া কেন্দ্রের কেন্দ্র সচিব কালাইয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোসা. ফেরদৌস শিরিন বলেন, আমি ক্যাজুয়াল ওই পরীক্ষার্থীদের জন্য সঠিক প্রশ্নপত্র সহকারি কেন্দ্র সচিবের কাছে বুঝিয়ে দিয়েছি। এরপরেও এমন ঘটনা কিভাবে হলো বুঝলাম না। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহামুদ জামান বাংলা দ্বিতীয় পত্র পরীক্ষার সময় ওই পরীক্ষার্থীদের ভেন্যু কালাইয়া হায়াতুন্নেচ্ছা বালিকা বিদ্যালয়ে গিয়ে তাদের সাথে কথা বলে ঘটনা সম্পর্কে নিশ্চিত হয়েছেন।