বরগুনায় বিদ্যুৎ সমস্যা সমাধানে মতবিনিময় সভা

2

জয়দেব রায়, বরগুনা ঃ বরগুনার বিদ্যুৎ সমস্যা সমাধানে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বরগুনা জেলা প্রশাসক মীর জহুরুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বরগুনা-১ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু। সভার মূল আলোচক ছিলেন, ২১ জেলার দায়িত্বে ওয়েস্ট পাওয়ার জোনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শফিক উদ্দিন। বিশেষ অতিথি ছিলেন, পুলিশ সুপার বিজয় বসাক ও জেলা পরিষদের প্রশাসক আলহাজ্ব মো. জাহাঙ্গীর কবির।

সভার শুরুতে বিদ্যুৎ সমস্যা সমাধানে ৯ দফা দাবী উপস্থাপন করেন, বরগুনা জেলা নাগরিক অধিকার সংরক্ষণ কমিটির সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন কামাল। দাবীগুলো হচ্ছে, বরগুনায় একটি ১৩২/৩৩ কেভি গ্রীড সাব-স্টেশন নির্মান করতে হবে। ইনকামিং সোর্স হিসেবে পটুয়াখালী থেকে বিকল্প লাইন চালু করা। কাঠালিয়া সাব স্টেশনে এসিআরের পরিবর্তে সার্কিট ব্রেকার স্থাপন করতে হবে। নতুন করে কমপক্ষে ১০টি ট্রান্সফর্মার বরাদ্দ দিতে হবে। ২১ শহর প্রকল্পের অসম্পূর্ণ লাইন সম্পূর্ণ করতে হবে। বরগুনা-ভান্ডারিয়া লাইনে আর্থওয়ার স্থাপন করতে হবে। নতুন জনবল কাঠামো তৈরি করে গ্রাহক সেবা নিশ্চিত করতে হবে। অভিযোগ গ্রহনের জন্য নির্দিষ্ট জনবলের ব্যবস্থা করতে হবে। পরিবহন এবং যোগাযোগের জন্য যানবাহনের পরিমান বাড়াতে হবে। দাবী বাস্তবায়ন নিয়ে আলোচনা করেন, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আব্বাস হোসেন মন্টু মোল্লা, পৌরসভার মেয়র মো. শাহাদাত হোসেন, বরগুনা জেলা নাগরিক অধিকার সংরক্ষণ কমিটির সভাপতি এডভোকেট তোফাজ্জেল হোসেন কিসলু তালুকদার, সাবেক পৌর মেয়র এডভোকেট মো. শাহজাহান, জেলা টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আনোয়ার হোসেন মনোয়ার, জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি শওগাতুল আলম হানিফ, সনাকের সাবেক সভাপতি এডভোকেট মো. আনিসুর রহমান, সমাজসেবক সুখরঞ্জন শীল, প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি চিত্তরঞ্জন শীল, খেলাঘরের সভাপতি মনিরুজ্জামান নশা, জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক শাহ মো. ওয়ালিউল্লাহ, খেলাঘরের সাধারণ সম্পাদক মুশফিক আরিফ। সকলের দাবীর মুখে ওয়েস্ট পাওয়ার জোনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শফিক উদ্দিন ৯ দফা দাবী পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়নের আশ্বাস দিয়েছেন। যার মধ্যে বরগুনায় অবশ্যই গ্রীড সাব স্টেশন নির্মান করা হবে। পায়রা নদী পাড় করে পটুয়াখালী থেকে আমতলী-পুরাকাটা হয়ে বরগুনায় বিদ্যুতের নতুন লাইন টানা হবে। আগামী ১ সপ্তাহের মধ্যে বরগুনায় চারটি নতুন ট্রান্সফর্মার পাঠানো হবে। জনবল সংকট পুরন করে পর্যাপ্ত পরিবহনের ব্যবস্থা করা হবে।