বরগুনায় ভুক্তভোগী পরিবারের সংবাদ সম্মেলন জাল দলিল লুকোতে ডাকাতি মামলা

1

 

জয়দেব রায়, বরগুনা : জাল দলিল লুকোতে ডাকাতির ঘটনা সাজিয়ে মিথ্যে মামলা দিয়ে হয়রানীর অভিযোগে বরগুনায় সংবাদ সম্মেলন করেছেন ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা। মঙ্গলবার সকালে বরগুনা প্রেসক্লাবে উপস্থিত হয়ে তারা জানান, জাল দলিলের মাধ্যমে পৈত্রিকসূত্রে পাওয়া সকল জমি রেকর্ড করে নিয়ে দু’টি পরিবারের ২০ জন সদস্যকে পথে বসিয়েছেন বরগুনা সদর উপজেলার গৌরীচন্না ইউনিয়নের মধ্য খাজুরতলা গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য রমনী মোহন মিস্ত্রী।

ভুক্তভোগী পরিবারের একজন সদস্য দিলীপ সাওজাল জানান, রমনী মোহন মিস্ত্রী জাল দলিলের মাধ্যমে তারই মামা যোগেন্দ্র নাথ রায় এবং জতিন্দ্র নাথ রায়ের প্রায় আট একর জমি নিজের নামে রেকর্ড করে নেন। দীর্ঘদিন পরে যোগেন্দ্র নাথ ও জতিন্দ্র নাথ রায়ের ওয়ারিশগন এ বিষয়ে আদালতে জাল দলিলের অভিযোগ এনে মামলা  (দেঃ মোঃ নং ১৩৪/১৫) দায়ের করলে আদালত রমনী মোহন মিস্ত্রীকে তার পক্ষের কাগজপত্র নিয়ে আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেয়। আদালতের এ নির্দেশনার একদিন পরেই রমনী মোহন মিস্ত্রী তার বাড়িতে একটি ডাকাতির ঘটনা সাজিয়ে গত ২০ নভেম্বর বরগুনা থানায় একটি মিথ্যে মামলা দায়ের করেন। যার নম্বর জিআর ২৮/৫৪০। এ  মামলায় রমনী মোহন মিস্ত্রী তার বিরুদ্ধে দায়ের করা দেওয়ানী মামলার বাদী পক্ষের লোকজনকে আসামী করেন এবং তার সকল দলিলপত্র ও গহনাপাতি লুট করে তাকে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগী পরিবারের অপর এক সদস্য সন্ধ্যা রানী জানান, আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী দলিলপত্র দেখাতে পারবেন না বলে সুপরিকল্পিতভাবে রমনী মোহন মিস্ত্রী তার বাড়িতে এ ডাকাতির ঘটনা সাজিয়ে মিথ্যে মামলা দায়ের করেন। অন্যদিকে যাতে বিরোধীয় পক্ষ তার বিরুদ্ধে কোন দেওয়ানী মামলাও চালাতে না পারেন তাই তাদেরকে আসামী করে পুলিশের চোখে অপরাধী করে রেখেছেন। সন্ধ্যা রাণী আরও জানান, রমনী মোহন মিস্ত্রীর দায়ের করা সেই মিথ্যে ডাকাতি মামলায় গেপ্তারী পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। সন্ধ্যা রানী আরও জানান, তাদের পৈত্রিকসূত্রে পাওয়া সকল জমি জাল দলিল করে রেকর্ড করিয়ে নিয়ে পুরোটাই এখন ভোগ দখল করছেন রমনী মিস্ত্রী। অন্যদিকে এ বাড়ি ও বাড়ি কাজ করে মানবেতর জীবন যাপন করছেন তারা।

এ বিষয়ে একই গ্রামের স্থানীয় অধিবাসী ও অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক চিত্তরঞ্জন বিশ্বাসের সাথে কথা বললে তিনি জানান, যোগেন্দ্র নাথ রায় এবং রমনী মোহন মিস্ত্রী সম্পর্কে মামা ভাগ্নে। মামা যোগেন্দ্র রায় একসময় একটি হত্যা মামলার আসামী হয়ে দীর্ঘদিন ইন্ডিয়া পলাতক ছিলেন। এই ফাঁকে ভাগ্নে রমনী মোহন মিস্ত্রী তার স্বাক্ষর জাল করে ভুয়া দানপত্র তৈরী করেন এবং যোগেন্দ্র রায়ের সকল সম্পত্তি দলিলমূলে রেকর্ড করে নেন। বিষয়টি স্থানীয় অধিবাসীদের অনেকেরই জানা। তিনি আরও বলেন, রমনী মোহন মিন্ত্রী আদালতে তার জাল দলিল দেখাতে পারবেন না বুঝেই তার বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা সাজিয়ে এ মিথ্যে মামলা দায়ের করেছেন বলে তাদের ধারণা।

রমনী মোহন মিস্ত্রীর অপর একজন প্রতিবেশী উপসহকারী ভূমী কর্মকর্তা দুলাল চন্দ্র বালা বলেন, রমনী মোহন মিস্ত্রী তার বাড়িতে ডাকাতির ঘটনায় তার বিরোধীয় পক্ষের উত্তম কুমার এবং গোবিন্দ বৈরাগীসহ আরও অনেকের নাম দিয়ে মামলা করেছেন। যাদের বাড়িও একই স্থানে পাশাপাশি। তিনি আরও জানান, ঘটনার দিন রমনী মোহনের বাড়ি যখন ডাকাতি সদৃশ কোন ঘটনা ঘটছিলো তখন তিনি এ মামলার প্রধান আসামী উত্তম কুমার এবং গবিন্দ বৈরাগীকে তাদেরই ঘর থেকে ঘুম থেকে ডেকে তোলেন এবং রমনী মোহনের বাড়িতে কিছু একটা ঘটছে বলে অবহিত করেন।

এ বিষয়ে উত্তম কুমার এবং গবীন্দ বৈরাগী জানান, ঘটনার দিন তারা নিজনিজ বাড়িতেই ঘুমিয়ে ছিলেন, বিষয়টি সবারই জানা। তারপরেও তাদের বিরুদ্ধে পরিকল্পিতভাবে মিথ্যে মামলা দেয়া হয়েছে। সে মামলায় এখন তারা গ্রেপ্তারী পরোয়ানা নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। তারা আরও জানান, এ মামলায় তাদেরই অপর আরেক খালাত ভাই সঞ্জয় মিস্ত্রী যে কিনা রাজধানী ঢাকায় পড়াশোনা করেন তাকেও আসামী করা হয়েছে।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত রমনী মিস্ত্রীর সাথে কথা বললে তার বিরুদ্ধে আনা সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তিনি কোন মিথ্যে মামলা করেননি। তার বাড়িতে মুখোশ পড়া লোকজন এসে ডাকাতি করেছে তাও এলাকাবাসী দেখেছে। মুখোশ পড়া ডাকাতদের মধ্যে উত্তম, গবীন্দ এবং সঞ্জয় মিস্ত্রী ছিল কিনা তা আপনি নিশ্চিৎ হলেন কী করে এমন প্রশ্নের কোন সদুত্তর দিতে পারেননি রমনী মিস্ত্রী।

এ বিষয়ে বরগুনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি (তদন্ত) মোঃ রফিকুল ইসলাম জানান, মামলাটি তদন্তাধিন রয়েছে। এ বিষয়ে পক্ষ বিপক্ষের আভিযোগ তারা শুনেছেন। পূর্ণ তদন্ত শেষ হলে প্রকৃত বিষয়টি বেরিয়ে আসবে বলে জানান তিনি ।