বাঁশের সাঁকোই এখন হাজার শিক্ষার্থীর চলাচলের একমাত্র ভরসা

2

 

গোফরান পলাশ, কলাপাড়া বিশেষ প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় বাঁশের সাঁকোই এখন ৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সহস্রাধিক শিক্ষার্থীর চলাচলের একমাত্র ভরসা। উপজেলার ধানখালী ইউনিয়নের লোন্দা এলাকার খালে আয়রন ব্রিজ না থাকায় প্রতিদিন সাঁকো থেকে পড়ে দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে শিক্ষার্থীরা। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায় শিক্ষার্থীদের এ দুর্ভোগ বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

জানা যায়, উপজেলার ধানখালী ইউনিয়নের লোন্দা এলাকার খালে আয়রন ব্রীজ না থাকায় ছৈলাবুনিয়া, ধানখালী, লোন্দা, গিলাতলা ও মধ্য লোন্দাসহ ৫ গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ সহ দু’টি প্রাইমারি ও একটি দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের প্রতিদিন ঝূঁকি নিয়ে বাশের সাঁকো পেরিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। এতে স্কুল-মাদ্রাসায় উপস্থিতির হার ক্রমশ: কমে যাচ্ছে। ফলে ওই এলাকার শিক্ষা কার্যক্রম অনিশ্চিত হয়ে পড়ছে। বর্ষার কয়েক মাসে ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের নিয়মিত উপস্থিতির হার ছিল ৩০%। অনেক শিক্ষার্থীই ঝরে পড়ে যাচ্ছে স্কুল থেকে। বৃষ্টির কারণে সংযোগ সড়ক গুলিতে হাঁটু পরিমাণ কাঁদা হয়।

গিলাতলা স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ুয়া শাহাদাৎ জানায়, প্রতিদিন  হেঁটে সাঁকো পেরিয়ে ঝূঁকি নিয়ে আসা যাওয়া করতে হয় তাদের। এতে প্রায়শ:ই স্কুলে যাওয়া হয়না তার।লোন্দা দাখিল মাদ্রাসার নবম শ্রেণির ছাত্রী ফারজানা আক্তার ও দশম শ্রেণির রুবিনা আক্তার জানান, সাঁকো তাদের ক্লাসের আসা যাওয়ার এক মাত্র ভরসা। কোনো সময় সাঁকো  ভেঙ্গে পানিতে পড়ে ক্লাস না করে বাসায় ফিরতে হয়।

এ ব্যাপারে কলাপাড়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আঃ মোতালেব তালুকদার জানান, ওই এলাকার দুরবস্থার কথা আমি শুনেছি। শীঘ্রই ওখানে আয়রন ব্রিজের ব্যবস্থা করে দেয়ার কথা বলেন তিনি।