বাউফলের শান্ত পরিবেশকে অশান্ত করার দায়ী চীফ হুইপ –উপজেলা চেয়ারম্যান

1

বাউফল বিশেষ প্রতিনিধিঃ বাউফল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ইঞ্জিনিয়ার মজিবুর রহমান অভিযোগ করে বলেন, আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বাউফলের শান্ত পরিবেশকে অশান্ত করার জন্য দায়ি চীফ হুইপ আ স ম ফিরোজ। তিনি তাঁর সন্ত্রাসী বাহিনী লেলিয়ে দিয়ে প্রকৃত আওয়ামী লীগ কর্মীদের বাউফল ছাড়া করার মিশনে নেমেছেন। বাউফলের ১১ টি ইউনিয়নে সুষ্ঠু  ভোট হলে তার প্রার্থীদের ভরাডুবি হবে বুঝেই ১১ টি ইউনিয়নে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েক করতে চাচ্ছেন। তিনি বলেন, চীফ হুইপ নির্বাচনী আচারণ বিধি লংঘন করে এবং জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বাউফলের মেয়র জিয়াউল হক জুয়েলকে পাশ কাটিয়ে প্রার্থী নির্বাচন করেছেন। যাহা সম্পূর্ণ দলের সিদ্ধান্তের পরিপন্থি। এর ফলে তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা হতাশ হয়ে পরেছেন। গতকাল বৃহষ্পতিবার উপজেলা চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মজিবুর রহমান আহত আবস্থায় বলেন, আমরাও আওয়ামী লীগ করি। বাউফল উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ দীর্ঘ বছর পর্যন্ত সভাপতির পদে আসিন থেকে তাঁর মনগড়া কমিটি গঠন করে প্রকৃত কর্মীদের দলের বাইরে রাখছেন। এনিয়ে তাঁর সাথে অনেকবার আলাপ করা হলেও বিষয়টি তিনি পাত্তা দিচ্ছেননা। ফলে তৃণূল পর্যায়ে সাধারন নেতাকর্মীরা ক্ষুব্ধ। বাউফল পৌরসভার মেয়র জিয়াউল হক জুয়েল পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ার পর বাউফল উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটিকে সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য করতে আপ্রাণ চেষ্টা করেও চীফ হুইপ ও তার কিছু তল্পিবাহকদের কারণে সেটা হয়ে ওঠেনি। প্রকৃত নেতাকর্মীদের আওয়ামী লীগের কমিটিতে জায়গা দিচ্ছেনা। বাউফলে আওয়ামী লীগের মধ্যে দ্বন্দ সৃষ্টির মূল কারণ ওখানেই নিহীত। আদাবাড়িয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের একজন কর্মী দুস্কৃতিদের হাতে নিহত হওয়ার ঘটনায় আমরাও এর তীব্র নিন্দা জানাই। আমরাও ওই খুনের সুষ্ঠু তদন্ত করে সুবিচার দাবি করছি। গত ৮ মার্চ জেলা প্রশাসক ও জেলা পুলিশ সুপারের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত উপজেলার আইন-শৃংখলা বিষয়ক সভায় উদ্দেশ্য প্রনোদিতভাবে আবদুল মোতালেব হাওলাদার ও নাজিরপুরের চেয়ারম্যান ইব্রাহিম ফারুক তাদের সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে আমার ওপর হামলা চালিয়েছে। আমাকে রক্ষা করতে এসে দাশপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান এমএন জাহাঙ্গীর ও নওমালা ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের সভাপতি শাহজাদা হাওলাদারও গুরুতর আহত হয়েছেন। এর সব কিছুই চীফ হুইপের নির্দেশে হয়েছে বলে আমি মনে করি। বাউফলের জনগণ দেখেছেন ৮ মার্চের তাদের সন্ত্রাসী কর্মকান্ড। আমি মনে করি এর ফলে আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে এবং এর প্রভাব নির্বাচনে পড়বে। উপজেলা চেয়ারম্যান ২২ মার্চ বাউফলের ১১টি ইউনিয়নে সুষ্ঠু ভোট গ্রহণের লক্ষে আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী সংস্থাগুলোকে নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালনের আহবান এবং সাংবাদিকদের প্রকৃত ঘটনা প্রকাশ করারও আহবান জানিয়েছেন।