বাউফলে আওয়ামীলীগ ও বিদ্রোহী সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে আহত-২৫

0

বাউফল প্রতিনিধি ঃ পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার নওমালা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে আওয়ামী লীগের মনোনীত ও বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকের মধ্যে দফায় দফায় হামলা, পাল্টা হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাট ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। গতকাল শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত থেমে থেমে চলা ওই সংঘর্ষে দুই পক্ষের আটটি ঘর ও পাঁচটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা, মোটরসাইকল ছিনতাই, ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে। এ সময় নারীসহ উভয় পক্ষের কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন । এ ঘটনায় জনমনে আতঙ্ক বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখার জন্য এলাকায় বিপুল পরিমান পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এদিকে বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার চন্দ্রদ্বীপ ইউপির আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. আমির আলী হাওলাদারের সমর্থকেরা বিদ্রোহী প্রার্থী উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. এনামুল হকের তিন সমর্থককে পিটিয়ে জখম করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে শাহআলম পন্ডিত (২৫) নামে একজনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্ের ভর্তি করা হয়েছে। যদিও এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন আমির আলী।

জানা গেছে, নওমালা ইউপির বাবুর হাট বাজারে বৃহস্পতিবার সন্ধার আগে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান মো. কামাল হোসেন বিশ্বাসের জনসংযোগের সময় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী উপজেলা শ্রমিক লীগের যুগ্ম আহবায়ক মো. শাহাজাদা হাওলাদারের কয়েকজন কর্মী-সমর্থক চেয়ারম্যান কামাল বিশ্বাসকে লাঞ্চিত করার চেষ্টা করে। ওই ঘটনার জের ধরে হোলাবুনিয়া বাজার এলাকার আবদুস ছালাম হাওলাদারের বাড়িতে বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. শাহাজাদা হাওলাদার তার কয়েকজন কর্মী-সমর্থকের নিয়ে গণসংযোগ করার সময় আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী ও বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান মো. কামাল হোসেন বিশ্বাসের সমর্থকেরা ওই গণসংযোগে হামলা চালায় এবং কয়েকটি মোটরসাইকেল ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এর জের ধরে ওই রাতেই দশটার দিকে শাহাজাদার সমর্থকেরা কামালের পক্ষের মো. আবদুল মালেক ও মো. ধলাই মোল্লার বাড়িতে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করে। পরে সংঘবদ্ধ হয়ে রাত ১১ টার দিকে কামালের সমর্থকেরা শাহাজাদার সমর্থিত মো. আতাহার মাষ্টারে বসত ঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে এবং মোশারেফ মৃধা, চান মিয়া, মো. মিলন মৃধা, মো. রফিক মৃধা ও মো. সিরাজ মৃধার ঘরে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর করে। এ ঘটনার জেরে গতকাল শুক্রবার সকালে নয়ার হাট এলাকায় কামালের সমর্থকদের ওপর হামলা চালায় শাহাজাদার সমর্থকেরা। দুই পক্ষের হামলার সময় মোসা. যমুনা বেগম (৬০), নাসির সরদার (৪০), নাসির প্যাদা (৩৫), সাইদুল সরদার (২৮), ছত্তার সরদার (৫৫) সহ উভয় পক্ষের কমপক্ষে ২৫ জন আহত হয়েছেন।

শাহাজাদা হাওলাদার বলেন,নির্বাচনে হেরে যাওয়ার ভয়ে আমার নির্বাচনী প্রচারনায় বাধাঁ সৃষ্টি ও কর্মী সমর্থকদেও বসত বাড়িতে হামলা করছে।

আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. কামাল বিশ্বাস অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন,হামলা ও ভাংচুরের ঘটনার সঙ্গে আমি কিংবা আমার কোনো কর্মী-সমর্থকেরা জড়িত না। নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট করার জন্য তার (শাহাজাদা) কর্মী-সমর্থকেরা হামলা, ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটাচ্ছে। ’

বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আ জ ম মাসুদুজ্জামান বলেন,ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।