বাউফলে আজ বিএনপির দু’গ্রুপের পাল্টাপাল্টি কর্মীসভা

10

 

অতুল পাল, বিশেষ প্রতিনিধি:আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে বাউফল উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক কার্যক্রম সক্রিয় করার লক্ষ্যে আজ রোববার বাউফলে জেলা বিএনপির দু’টি গ্রুপ পাল্টাপাল্টি কর্মিসভা করার ঘোষণা দিয়েছেন। বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ও পটুয়াখালী জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এয়ার ভাইস মার্শাল আলতাফ হোসেন চৌধুরী এবং পটুয়াখালী জেলা বিএনপির সাবেক আহবায়ক আব্দুর রশিদ চুন্নু মিয়া পাল্টাপাল্টি এ কর্মীসভা আহবান করেছেন। পাল্টাপাল্টি কর্মীসভা করার ঘোষণায় বাউফলে উভয় গ্রুপের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে টানটান উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বাউফল বিএনপির দু’পক্ষের একাধিক নেতাকর্মী জানিয়েছেন, বাউফল উপজেলা বিএনপির বর্তমান সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার ফারুক আহমেদ তালুকদারের সভাপতিত্বে রোববার বেলা ১০ টায় তার বাসভবনে অবস্থিত উপজেলা বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয়ে কর্মীসভা করা হবে বলে জেলা বিএনপির সভাপতি আলতাফ হোসেন চৌধুরী ও সাধারন সমম্পাদক এমএ রব মিয়া স্বাক্ষরিত চিঠি তাদের নেতাকর্মী ও সংবাদকর্মীদের মধ্যে বিলি করা হয়। অপরদিকে বাউফলে বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য ও উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি শহিদুল আলম তালুকদারের সভাপতিত্বে তার বাসভবনে কমিটি গঠনের লক্ষ্যে একই দিনে উপজেলা বিএনপির কর্মীসভা অনুষ্ঠিত হবে বলে জেলা বিএনপির সাবেক আহবায়ক আব্দুর রশিদ চুন্নু মিয়া ও সাবেক সাধারন সম্পাদক ¯েœহাংশু সরকার স্বাক্ষরিত চিঠি তাদের সমর্থিত নেতাকর্মী ও সংবাদকর্মীদের মধ্যে বিলি করা হয়েছে। বাউফলে বিএনপির দু’পক্ষের একই দিনে পাল্টাপাল্টি কর্মীসভা করাকে কেন্দ্র করে তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা বস্তুত: বিভক্তি হয়ে পরেছে। একারণে উভয় পক্ষের মধ্যেই টানটান উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে। কোন প্রকার শো ডাউন হলে ঘটে যেতে পারে চরম অনাকঙ্খিত ঘটণা।

এ বিষয়ে বাউফল উপজেলা বিএনপির বর্তমান কমিটির সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক শহিদুর রহমান তালুকদার বলেন, ইঞ্জিনিয়ার ফারুক আহম্মেদ তালুকদার এখন বাউফল বিএনপির কান্ডারি। তার নেতৃত্বে নেতাকর্মীসহ দলীয় কার্যক্রম সক্রিয় রয়েছে। সাবেক সংসদ সদস্য শহিদুল আলম তালুকদার এখন দলের কেউ নয়। বাউফল বিএনপিকে দুর্বল করার জন্যই তিনি কর্মীসভার নামে প্রহসন করছেন। এদিকে সাবেক এমপি শহিদুল আলম তালুকদার জানান, ইঞ্জিনিয়ার ফারুকের হাতে বাউফল উপজেলা বিএনপি চললে দলের অস্তিত্ব থাকবেনা। তার সময়ে দলীয় কার্যক্রম তার বাসাবাড়িতেই সিমাবদ্ধ রয়েছে। রাজপথের মুখ দেখেনি। এছাড়া  তিনি ব্যবসার জন্য বেশিরভাগ সময়ই এলাকার বাহিরে থাকেন। তার নেতৃত্বে বাউফলে বিএনপি এখন বিলুপ্তির পথে। অপরদিকে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক  এমএ রব মিয়া বলেন, ¯েœহাংশু সরকার দলের কেউ নয়। সংগঠন বিরোধী কর্মকান্ডের জন্যে তাকে অনেক আগেই দল থেকে অপসারণ করা হয়েছে। এদিকে ¯েœহাংশু সরকার বলেন, জেলা বিএনপিকে ঢেলে সাজাতে হবে। অনেক ত্যাগী নেতাকর্মীদের দলে স্থান দেয়া হয়নি। এ কারণে জেলা ও উপজেলা কমিটিগুলো সাংগঠনিক শক্তি হারিয়েছে। সাংগঠনিক শক্তি পুণরুদ্ধার করতেই নতুন করে কমিটি গঠনের লক্ষ্যে এ কর্মসূচী দেয়া হয়েছে। এদিকে যে কোন ধরণের সহিংস ঘটনা প্রতিরোধে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তৎপর রয়েছেন বলে বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আযম খান ফারুকী জানিয়েছেন।