বাউফলে এসএসসি ও দাখিল পরীক্ষার্থীদের প্রবেশ পত্র আটকে টাকা আদায়

1

 

বিশেষ প্রতিনিধি : বাউফলের বিভিন্ন স্কুল ও মাদ্রাসায় এসএসসি ও দাখিল পরীক্ষার্থীদের প্রবেশ পত্র আটকে রেখে কেন্দ্র-ফির নামে ৪ থেকে ৫ শত টাকা আদায় করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ঘুরে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সাথে কথা বলে এ তথ্য জানা গেছে।

সরেজমিনে বাউফল ছালেহীয়া দাখিল মাদ্রাসায় গিয়ে দেখা গেছে, ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে প্রবেশ পত্র সংগ্রহের সময় ৪শ টাকা আদায় করছে। শিক্ষার্থীরা জানায়, এর আগে ফরম পূরণের সময়ও তাদের কাছ থেকে ৩ হাজার টাকা নেয়া হয়েছে। ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মো. নজরুল হকের কাছে প্রবেশ পত্র দেয়ার সময় টাকা নেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, শিক্ষক সমিতির সভায় কেন্দ্র ফি হিসেবে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে সাড়ে ৩শ টাকা আদায় করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ওই টাকা আদায় করা হচ্ছে। একই অবস্থা দেখা গেছে বাউফল আদর্শ বালিকা বিদ্যালয়, নাজিরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কালাইয়া হায়াতুনন্নেছা বালিকা বিদ্যালয়, কালাইয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বাজেমহল মাধ্যমিক বিদ্যালয়, পূর্ব নওমালা সিনিয়র মাদ্রাসাসহ উপজেলার অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। অভিভাবকরা জানান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো ফরম পূরণের সময় শিক্ষার্থীদের থেকে বোর্ডের নির্ধারিত ফি এর চেয়ে কয়েকগুণ বেশি টাকা নিয়েছেন। এখন আবার প্রবেশ পত্র আটকে রেখে ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা নিচ্ছেন। এর আগে জানুয়ারীর ১ ও ২ তারিখ বিনামূল্যের বই দেয়ার সময়ও প্রত্যেক শিক্ষার্থীর থেকে ২০০ থেকে ৭০০ টাকা পর্যন্ত আদায় করে নিয়েছেন। তারা আরো অভিযোগ করেন, সাংবাদিকদের লেখার কারণে লোক দেখানো তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কিন্তু অনৈতিক সুবিধা নিয়ে তদন্তকারীরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পক্ষেই রিপোর্ট দেন। যার ফলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে।

বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি বাউফল শাখার সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম রাসেল বলেন, কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যদি আগে কেন্দ্র ফি নিয়ে থাকেন তাহলে এখন প্রবেশ পত্র সংগ্রহের সময় এ টাকা নেয়ার কোন সুযোগ নেই। আমার কাছেও এ ধরণের একাধিক অভিযোগ এসেছে। বাউফল উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. শহিদুল হক জানান, এই ধরনের টাকা আদায়ের আইনগত কোন বৈধতা নেই। সুস্পষ্ট অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।