বাউফলে কালবৈশাখী ঝড়ে অর্ধশত ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত

9

স্টাফ রিপোর্টারঃ পটুয়াখালীর বাউফলে কালবৈশাখী ঝড়ে প্রায় অর্ধশত ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে বাউফলের ধুলিয়া লঞ্চঘাট এলাকা দিয়ে কালবৈশাখী ঝড় বয়ে যায়। ঝড়ো হাওয়ায় ১০টি টিনশেড ঘর সম্পূর্ণভাবে বিধ্বস্ত হয়। বাকীগুলো আংশিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয় ।

বৃহস্পতিবার রাতে বাউফলের ধুলিয়া লঞ্চঘাট এলাকা দিয়ে বয়ে যাওয়া কালবৈশাখী ঝড়ে লঞ্চঘাট নতুন বাজার এলাকার স্বামী পরিত্যক্তা জাহানারা বেগম বলেন, গভীর রাতে ঘুমের মধ্যে হঠাৎ আলোর ঝলকানি আঁচ করতে পারি। পরে চোখ খুলে দেখি খোলা আকাশের নিচে শুয়ে আছে। এভাবে চোখের পলকে  ওই এলাকার ১০টি বসতবাড়ি ঝড়ের হাওয়ায় উড়ে গেছে। আমীর হোসেন নামের অপর এক ব্যক্তি বলেন, লঞ্চঘাট এলাকাটি নদী ভাঙ্গন কবলিত। তেঁতুলিয়া নদীতে বিলীন হয়ে যাচ্ছে ধুলিয়া ইউনিয়নের একাধিক গ্রাম।  ভাঙ্গনের শিকার হয়ে প্রতিবছর শতশত পরিবার ভূমিহীন হয়ে যাচ্ছে। অনেকে মাথা গোঁজার জন্য শহরে পাড়ি দিয়েছেন। এ অবস্থায় মরার উপর খাঁড়ার ঘা বৃহস্পতিবার রাতে হঠাৎ করে কালবৈশাখী ঝড় লন্ডভন্ড করে দিয়ে যায় ধুলিয়া ইউনিয়নের নদী ভাঙ্গনকবলিত ওই এলাকাটি। ঝড়ে ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হওয়ায় বর্তমানে ওই এলাকার অর্ধশত পরিবার খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছেন। ধুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান আনিচুর রহমান রব বলেন, ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলোকে আশ্রয় দেয়ার জন্য সরকারি সহায়তা প্রয়োজন। বিষয়টি বাউফলের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবহিত করা হয়েছে বলেও তিনি দাবী করেন।