বাউফলে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের অবহেলায় প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ

1

 

কৃষ্ণ কর্মকার, বাউফল : পটুয়াখালীর বাউফলে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের অবহেলায় মরিয়ম বেগম (২২) নামে এক প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সংলগ্ন সেবা নামে একটি ক্লিনিকে এ ঘটনা ঘটেছে। মরিয়ম বেগম পাশের দশমিনা উপজেলার দক্ষিন চর শাহজালাল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একজন সহকারী শিক্ষক। তার স্বামীর নাম মো. সুমন মিয়া।

নিহতের ভাই আলী আকবর বলেন, মঙ্গলবার সকাল সাতটার দিকে মরিয়মকে ওই ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ি অস্ত্রোপচারের জন্য পায়ে হেটেই দোতলায় অপারেশন থিয়েটারে যান মরিয়ম। প্রায় দেড় ঘন্টা পর ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ জানায়, ক্লিনিকে পর্যাপ্ত অক্সিজেন নেই, রোগীর শারিরীক অবস্থা খারাপ। দ্রুত বরিশাল পাঠাতে হবে। একথা বলতে বলতে মরিয়মকে কম্বল দিয়ে পেঁচিয়ে স্ট্রেচারে করে তড়িঘড়ি করে একটি এ্যাম্বুলেন্সে তুলে দেয় এবং এ্যাম্বুলেন্সের চালককে চড়-থাপ্পর দিয়ে বলে চালা, বরিশাল নিয়ে যা। পরে দেখি আমার বোন আর নেই।

নিহতের বড় বোন কুলসুম বেগম অভিযোগ করেছেন, ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের অবহেলায় ও চিকিৎসকের ভুল চিকিৎসায় তার বোন মারা গেছে, তাকে হত্যা করা হয়েছে। এ কারনে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ মরিয়মকে এ্যাম্বুলেন্সে উঠানোর আগ পর্যন্ত তদেরকে দেখতে দেয়নি। ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ নিজেদেরকে রক্ষা করার জন্য বরিশাল পাঠানোর নাটক করেছেন। তিনি এ ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন।

এক অনুসন্ধানে জানা গেছে,ওই ক্লিনিকের নেই কোনো নিজস্ব চিকিৎসক, নেই অ্যানেসথিসিয়া দেওয়ার চিকিৎসকও, এরপরও ওই ক্লিনিকে ভর্তি করা হয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মরিয়ম বেগমকে। পরিবেশ অধিদপ্তরের কোনো প্রকার অনুমতি ছাড়াই প্রশাসনের নাকের ডগায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মূল ফটকের সামেনই একটি বহুতল ভবনে চলছে ওই ক্লিনিকের রমরমা ব্যবসা।

অভিযোগ অস্বীকার করেন পটুয়াখালী সদর হাসপাতালের চিকিৎসক মাহাবুবুর রহমান সিকদার। তিনি বলেন,‘রোগীর শারিরীক অবস্থা খারাপ হওয়ার কারনে রোগীকে বরিশাল পাঠাতে বলে ওই ক্লিনিক থেকে চলে আসি।’

সেবা ক্লিনিকের চেয়ারম্যান মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী রোগীকে বরিশাল শেরে-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। পথে ওই রোগী মারা গেছে। এখানে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের অবহেলা ও চিকিৎসকের ভুল চিকিৎসার অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে তিনি দাবি করেন।